ফ্রান্স ও ভারত বৃহস্পতিবার COVID-19 সংকটের পরিপ্রেক্ষিতে ভারতের সবচেয়ে দুর্বল মানুষকে সহায়তা করার জন্য রাজ্য ও কেন্দ্রীয় সরকারের সক্ষমতা বাড়ানোর জন্য 200 মিলিয়ন ইউরোর চুক্তি স্বাক্ষর করেছে

এক toণ অনুদানের চুক্তিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর অর্থনীতি বিষয়ক বিভাগের অতিরিক্ত সচিব সিএস মহাপাত্র এবং ভারতে ফ্রান্সের রাষ্ট্রদূত এমমানুয়েল লেনেনের ভার্চুয়াল উপস্থিতিতে ভারতে পরিচালক - এএফডি (ফরাসী উন্নয়ন সংস্থা) ব্রুনো বোসলে স্বাক্ষরিত হয়েছিল, একটি বিবৃতি অনুসারে ফ্রেঞ্চ দূতাবাস দ্বারা "এই loanণের মাধ্যমে ফ্রান্স কোভিড -১৯ সংকটের পরিপ্রেক্ষিতে দেশের সবচেয়ে দুর্বল মানুষকে সহায়তা করার জন্য রাজ্য ও কেন্দ্রীয় সরকারের সক্ষমতা বাড়ানোর জন্য ভারতের সাথে কাজ করবে," এতে বলা হয়েছে। বিশ্ব কর্তৃপক্ষের সহযোগিতায় বিশ্বব্যাংক কর্তৃক প্রণীত এই প্রোগ্রাম ডিজাইনটি ভারত সরকারের বিদ্যমান সামাজিক সুরক্ষা ব্যবস্থাগুলি অনুকূলকরণ ও বর্ধিত করার চেষ্টা করেছে, এতে বলা হয়েছে। "প্রধানমন্ত্রী গরিব কল্যাণ যোজনা বৃদ্ধিতে মনোনিবেশ করা, এই কর্মসূচিটি নিম্ন আয়ের পরিবারগুলিকে আরও সুবিধা প্রদান করবে যাতে কোভিড -১৯ থেকে উদ্ভূত স্বাস্থ্য, সামাজিক ও অর্থনৈতিক ধাক্কা জনগণের মঙ্গল বা দেশটিতে তাদের অবদানকে ক্ষতিগ্রস্থ করতে না পারে তা নিশ্চিত করে "দীর্ঘমেয়াদে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি," এতে বলা হয়েছে। এই কর্মসূচিতে স্বাস্থ্যসেবা, স্যানিটেশন এবং সুরক্ষার লোকজন সহ মহামারীটির প্রয়োজনীয় সামনের কাজগুলি স্বাস্থ্য বীমা সরবরাহ করে তাদের রক্ষা করার চেষ্টা করা হয়েছে। এতে প্রবাসী শ্রমিক এবং নিম্ন-আয়ের শহুরে পরিবার যারা পিএমজিকেওয়ির অধীনে ক্ষতিপূরণ পেতে অক্ষম হতে পারে তাদের জন্যও সামাজিক সহায়তা কর্মসূচি স্থাপন করা হবে। বহুপাক্ষিক সহযোগিতার মাধ্যমে ফ্রান্স বিশ্ব চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হওয়ার ক্ষেত্রে ফ্রান্স তার গুরুত্বের কথা স্মরণ করে ভারতে নিযুক্ত ফ্রান্সের রাষ্ট্রদূত লেনেন বলেছিলেন, "রাষ্ট্রপতি ম্যাক্রন এবং প্রধানমন্ত্রী (নরেন্দ্র) মোদী একসাথে কাজ করে যাচ্ছেন যাতে আমাদের দুই দেশের মধ্যকার চমৎকার সম্পর্কগুলি দৃ concrete় সহযোগিতায় রূপান্তর করতে পারে কোভিড -১৯ এর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে।

businessinsider