উভয় পক্ষের প্রতিনিধিগন দুটি স্থলবন্দর এবং অবকাঠামো উন্নয়ন কার্যক্রম পরিদর্শন করেছেন

আন্তঃসীমান্ত বাণিজ্যের আরও সহজতর সুবিধার্থে পরামর্শ ও যৌথ বিকাশ অব্যাহত রেখে, ভারত ও বাংলাদেশ চলমান অবকাঠামো উন্নয়ন কার্যক্রম পর্যালোচনা করে এবং বিদ্যমান সহযোগিতা আরও জোরদার করতে সম্মত হয়।

কুমিল্লায় অবস্থিত ইন্টিগ্রেটেড চেকপোস্ট / ভূমি শুল্ক স্টেশন গুলোর অবকাঠামো সম্পর্কিত বর্তমান অবস্থা পর্যালোচনা করা হয়েছিল ভারত-বাংলাদেশ উপগোষ্ঠীর তৃতীয় বৈঠকে,। বাংলাদেশ ৯ থেকে ১১ ফেব্রুয়ারি।

ভারতের স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষ (এলপিএআই) জানিয়েছে যে, প্রতিনিধি দলের সদস্যরা দুটি স্থলবন্দর বিবিরবাজার-শ্রীমন্তপুর এবং বেলোনিয়া-মুহুরিঘাট পরিদর্শন করেছেন। তারা এই স্থলবন্দর গুলোর চলমান অবকাঠামোগত উন্নয়ন কার্যক্রম পরিদর্শন করেছেন।

ভারতীয় প্রতিনিধি দলের নেতৃত্বে ছিলেন আদিত্য মিশরা, চেয়ারম্যান, এলপিএআই এবং বাংলাদেশ দলের নেতৃত্বে ছিলেন কে.এম. তারিকুল ইসলাম, চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ স্থল বন্দর কর্তৃপক্ষ।

একাধিক টুইটার পোস্টের মাধ্যমে এলপাইএর দেওয়া তথ্যের মতে, বিস্তারিত আলোচনার মধ্যে বিদ্যমান বন্দর অবকাঠামোগত সুবিধাগুলি উন্নয়নের বিষয়ে পারস্পরিক সহযোগিতা, পৃথকীকরণের সুযোগ-সুবিধা স্থাপন, আন্তর্জাতিক সীমান্তের ১৫০ গজের মধ্যে উন্নয়নমূলক কাজ নির্মাণ এবং বন্দর কর্মকর্তাদের মধ্যে তথ্য ভাগাভাগি অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য ও বাণিজ্যিক সম্পর্কের অগ্রগতি সম্পর্কে সন্তুষ্টি উল্লেখ করে, উভয় পক্ষ বিদ্যমান সহযোগিতা আরও জোরদার করতে সম্মত হয়েছেন বলে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।


তারা আরও বলেছে যে, এই বছরের সেপ্টেম্বরে উপগোষ্ঠীর পরবর্তী সভা অনুষ্ঠিত হবে।