মঙ্গলবার (৯ মার্চ) ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ভারত-বাংলাদেশের মধ্যকার ‘মৈত্রী সেতু’ (বন্ধুত্ব সেতু) উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

‘মৈত্রী সেতু’ নির্মিত হয়েছে ফেনী নদীর উপরে যা ত্রিপুরা এবং বাংলাদেশের ভারতীয় সীমানার মাঝে প্রবাহিত হয়।

‘মৈত্রী সেতু’ নামটি ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে ক্রমবর্ধমান দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক এবং বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের প্রতীক।

জাতীয় সড়ক ও অবকাঠামো উন্নয়ন কর্পোরেশন লিমিটেড সেতু নির্মাণ এই প্রকল্পে ব্যয় নিয়েছিল ১৩৩ কোটি টাকা, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের (পিএমও) এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে।

১.৯ কিলোমিটার দীর্ঘ সেতুটি বাংলাদেশের রামগড়ের সাথে ভারতের সাবরুমের বাণিজ্য ও জনগণের কাছে ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে চলাচলের জন্য একটি নতুন অধ্যায় সূত্রপাত করেছে।

সেতুর উদ্বোধনের সাথে সাথে, ত্রিপুরা হয়ে উঠবে বাংলাদেশের চট্টগ্রাম বন্দরের ‘উত্তর পূর্ব প্রবেশদ্বার’, যেটা সাবরুম থেকে মাত্র ৮০ কিলোমিটার দূরে।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, প্রধানমন্ত্রী মোদী সাবরুমে ইন্টিগ্রেটেড চেকপোস্ট স্থাপনের ভিত্তিপ্রস্তরও রাখবেন।

এটি দুই দেশের মধ্যে পণ্য ও যাত্রী চলাচল সহজতর করবে, উত্তর-পূর্ব রাজ্যের পণ্যগুলির জন্য নতুন বাজারের সুযোগ হবে এবং ভারত ও বাংলাদেশ থেকে আসা যাত্রীদের নির্বিঘ্ন চলাচলে সহায়তা করবে।

প্রকল্পটি ভারতের ভূমি বন্দর কর্তৃপক্ষ প্রায় আনুমানিক ২৩২ কোটি টাকা ব্যয়ে করেছে।