বিশ্ব সভ্যতা হুমকির সম্মুখীন: জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদকে জয়শঙ্কর

বর্তমান বিশ্ব মানবসভ্যতা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ পরবর্তী সবচেয়ে বাজে সময়ের মধ্য দিয়ে অতিক্রম করছে বলে মন্তব্য করেছেন ভারতীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর। গত ১৯ এপ্রিল, ২০২১, সোমবার, জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের এক অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ পরবর্তী সময়ে গৃহীত আর্থ-সমাজব্যবস্থাও বর্তমানে ভঙ্গুর দশা পার করছে বলে অভিমত ব্যক্ত করেন তিনি। জয়শঙ্কর বলেন, “৭৫ বছর পূর্বে জাতিসংঘ যে প্রেক্ষাপটে তৈরী হয়েছিলো, তখনকার সঙ্গে বর্তমানের প্রভূত পার্থক্য পরিলক্ষিত হয়। প্রতিষ্ঠালগ্নে এর সদস্য দেশগুলো যে ধরণের চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতো, সেসবের ধরণও পরিবর্তন হয়েছে বিগত বছর গুলোয়।”

জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ কতৃক আয়োজিত জাতিসংঘের সঙ্গে বিভিন্ন মহাদেশীয় আঞ্চলিক কিংবা উপ-আঞ্চলিক সংস্থা বা প্রতিষ্ঠানের সহযোগিতার বিষয়ে একটি ভার্চুয়াল সভায় বক্তৃতাকালে এসব মন্তব্য করেন তিনি।

তিনি আরও বলেন, “বর্তমান সময়ে দেশগুলোর চ্যালেঞ্জ শুধুমাত্র ভূরাজনৈতিক বিরোধ কিংবা স্বার্থের সংঘাতে সীমাবদ্ধ নয়। বরং বৈশ্বিক সন্ত্রাসবাদ, মাদক, সংগঠিত অপরাধী চক্র প্রভৃতি দ্বারা দেশ গুলো আক্রান্ত হচ্ছে।”

প্রযুক্তির অপব্যবহার, তথ্য প্রযুক্তির নিত্য নতুন উদ্ভাবনের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট গুরুত্বপূর্ণ নিরাপত্তা ইস্যু গুলোকে উপেক্ষা করার সুযোগ নেই বলে মনে করেন তিনি।

জাতিসংঘের সঙ্গে বিভিন্ন আঞ্চলিক এবং উপ-আঞ্চলিক সংস্থার একত্রে কাজ করার উপর জোর দিয়ে তিনি বলেন, “বৈচিত্র্যময় এবং বাহারী সব গুরুত্বপূর্ণ চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার জন্য আমাদের সমন্বিত এবং একযোগে কাজ করার বিকল্প নেই।”

এ ধরণের সম্পর্ককে এগিয়ে নেয়ার স্বার্থে জাতিসংঘ এবং আঞ্চলিক প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যকার বিগত ৭৫ বছরের সহযোগিতা ভিত্তিক কার্যক্রমের সঠিক মূল্যায়ণেরও দাবি করেন তিনি।

জয়শঙ্কর বলেন, স্থানীয় নানা জটিল ইস্যুতে গভীর জ্ঞান সংরক্ষণ করার দরুণ আঞ্চলিক শান্তি প্রতিষ্ঠায় আঞ্চলিক এবং উপ-আঞ্চলিক প্রতিষ্ঠান গুলো জাতিসংঘের জন্য আশীর্বাদ স্বরূপ বিবেচিত হতে পারে।

এ প্রসঙ্গে নিজ দেশ ভারতের উদাহরণ টেনে তিনি নিরাপত্তা কাউন্সিলকে বলেন, “ভারত বরাবরই আঞ্চলিক সংস্থা গুলোর সঙ্গে নিবিড় এবং বন্ধুত্বপূর্ণ সহযোগিতা বজায় রেখে চলেছে।”

আশিয়ান -এর সঙ্গে সম্পর্ককে ভারতের পররাষ্ট্রনীতির মূল ভিত্তি এবং ভারতের পূর্বাঞ্চলের দেশগুলোর সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্কের নির্ণায়ক বলে অভিহিত করেন মোদী সরকারের গুরুত্বপূর্ণ এই মন্ত্রী।

তিনি আরও বলেন, বিমসটেক এর সদস্য দেশগুলোর সঙ্গেও ভারতের গুরুত্বপূর্ণ সম্পর্ক রয়েছে এবং বিমসটেকের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য বাস্তবায়নে ভারত সরকার বদ্ধপরিকর।

এছাড়া, আফ্রিকান ইউনিয়ন এবং আফ্রিকা মহাদেশীয় দেশ গুলোর সঙ্গে নিবিড় সম্পর্ক রয়েছে দাবি করে তিনি বলেন জাতিসংঘের সঙ্গে একত্রে মিলে ভারতও আফ্রিকার শান্তিরক্ষা মিশনে কাজ করে চলেছে।