ভারতের সঙ্কট মোকাবেলায় মার্কিন প্রশাসনের নীরবতার বিষয়টি নিয়ে আমেরিকার অভ্যন্তরেই সমালোচনা শুরু হয়। এর প্রেক্ষিতেই দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণ পূর্বক বিশাল সাহায্য পাঠানোর উদ্যোগে নিয়েছে বাইডেন প্রশাসন।

কোভিডের দ্বিতীয় ঢেউয়ে বিপর্যস্ত ভারতকে সহায়তার জন্য আমেরিকার পাঠানো সহায়তা সামগ্রীর প্রথম চালান ভারতে এসে পৌছেছে। সম্প্রতি মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন মহামারীর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ভারতকে সাহায্য করার প্রতিশ্রুতি ঘোষণা করেন। তাঁর মাত্র কিছুদিনের ব্যবধানেই উক্ত ত্রাণসামগ্রী ভারতে এসে পৌছুলো। ৩০ এপ্রিল, শুক্রবার, এক টুইটবার্তায় আমেরিকায় নিযুক্ত ভারতীয় দূতাবাস খবরটি নিশ্চিত করেছে।

টুইট লিঙ্ক: https://twitter.com/USAndIndia/status/1387963303238897665

ত্রাণ চালান গ্রহণ পূর্বক বিশেষ এই সহায়তার জন্য মার্কিন প্রশাসনকে কৃতজ্ঞতা জানিয়ে টুইট করেছে ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

টুইট লিঙ্ক: https://twitter.com/MEAIndia/status/1387976006410018817

এদিকে ভারতে সাহায্য অব্যহত রাখার ঘোষণা দিয়ে হোয়াইট হাউজ জানিয়েছে, “ভারতে ১০০ মিলিয়ন ডলার সমমূল্যের ত্রাণ সহায়তা প্রদান করা হবে।”

প্রথম ধাপে বিশ্বের বৃহত্তম সামরিক বিমান ট্র্যাভিস এয়ার ফোর্স বেজ এর মাধ্যমে ৪৪০ টি অক্সিজেন সিলিন্ডার, প্রাথমিক পর্যায়ে সংক্রমণ শণাক্ত করতে ৯,৬০,০০০ টি র‍্যাপিড ডায়াগনস্টিক টেস্ট সামগ্রী এবং ১ লক্ষ এন-৯৫ মাস্ক নয়াদিল্লীতে পাঠানো হয়েছে বলে গত ২৮ এপ্রিল, ২০২১, বুধবার, এক বিবৃতিতে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা (ইউএসএআইডি)।

তাছাড়া আমেরিকা থেকে অ্যাস্ট্রাজেনেকা ভ্যাক্সিন উৎপাদনের কাঁচামাল আমদানীতেও ভারতের উপর থেকে মার্কিন নিষেধাজ্ঞা সরিয়ে নেয়া হয়েছে। এতে ভারত নতুন করে প্রায় ২০ কোটি ডোজ তৈরী করার সুযোগ পাবে।

এর পাশাপাশি ‘আমেরিকান সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল এন্ড প্রিভেনশন’ ভারতের হাসপাতাল ব্যবস্থাপনায় অক্সিজেন সিলিন্ডার পাঠাবে বলে জানিয়েছে। এছাড়াও সহায়তার প্রাথমিক ভাগেই আমেরিকা ভারতকে কোভিড রোগীদের চিকিৎসার জন্য প্রয়োজনীয় অ্যান্টি-ভাইরাল ড্রাগ রেমডেসিভির এর ২০,০০০ কোর্স পাঠাচ্ছে।

মার্কিন প্রশাসনের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “মহামারীর প্রথম পর্যায়ে আমেরিকা যখন দিশেহারা অবস্থা পার করছিলো, তখন ভারত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সহায়তায় এগিয়ে আসে। এখন আমেরিকাও ভারতকে সহযোগিতা পূর্বক নিজেদের বন্ধুত্বের প্রমাণ রাখছে।”

প্রসঙ্গত, বিশ্বে করোনা ভাইরাস সংক্রমণের নতুন কেন্দ্র হয়ে উঠেছে ভারত। প্রতিদিনই করোনার সংক্রমণ এবং মৃত্যুতে নতুন রেকর্ড তৈরী হচ্ছে সেখানে। সাম্প্রতিক তথ্য বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, ভারতে করোনায় দৈনিক সাড়ে তিন লক্ষাধিক মানুষ আক্রান্ত এবং প্রায় তিন হাজার মানুষ মৃত্যুমুখে পতিত হচ্ছেন। চারিদিকে বিরাজ করছে থমথমে অবস্থা। গত ২৪ ঘন্টায় ভারতে আক্রান্ত হয়েছে ৩.৮ লক্ষেরও অধিক এবং মৃত্যুবরণ করেছেন প্রায় ৩৪৯৮ জন।