করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের বিরুদ্ধে প্রাণপণ লড়াই করা ভারতে পূর্বের তুলনায় অধিক চিকিৎসা সামগ্রী সরবরাহ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ফ্রান্স।

করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে শুরু থেকেই ভারতের পাশে রয়েছে ফ্রান্স। তারই ধারাবাহিকতায় গত মে মাসের গোড়ার দিকে ভারতে আটটি অক্সিজেন জেনারেটর সরবরাহ করেছিল তাঁরা। এবার নতুন খবর হিসেবে জানা গেলো, ভারতে ইতোমধ্যে পাঠানো সাহায্যের আরও কমপক্ষে দ্বিগুণ সরঞ্জাম পাঠাতে চলেছে ফ্রান্স।



গত ৩১ মে, সোমবার, নয়াদিল্লীস্থ ফরাসী দূতাবাসের এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, দশটি ইউনিট নিয়ে একটি বিশেষ কার্গো ফ্লাইট জুন মাসের মাঝামাঝি সময়ে এবং তার কিছুদিন পরই আরও একটি ফ্লাইট ভারতে এসে পৌছুবে।



দূতাবাসের তরফে জানানো হয়েছে, আগত অক্সিজেন জেনারেটর গুলো অত্যন্ত উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন এবং ঘন্টায় প্রায় ২৪ হাজার লিটার তরল অক্সিজেন উৎপাদন করতে পারে। একই সঙ্গে, ২৫০ শয্যার একটি হাসপাতালে প্রায় এক যুগ অবধি সর্বাত্মক চাহিদা মেটাতে সক্ষম এই যন্ত্র গুলো।



উল্লেখ্য, করোনা সঙ্কটে পাশে থাকার প্রত্যয়ে ইতোমধ্যে ফ্রান্স এবং ভারত নিজেদের মধ্যে অক্সিজেন সেতুবন্ধন তৈরী করেছে। এর আওতায় ফরাসী কন্টেইনার গুলো কাতারে ভরাট করে ভারতীয় নৌবাহিনীর সহায়তায় ভারতে প্রেরণ করা হয়। এরপর আবার রিফিলের সেগুলোকে জন্য কাতারে পৌছে দেয়া হয়।



ফরাসী দূতাবাস প্রদত্ত তথ্য অনুযায়ী, গত তিন সপ্তাহে এই অক্সিজেন কূটনীতির আওতায় প্রায় ১৮০ টন তরল অক্সিজেন ভারতীয় হাসপাতাল গুলোতে পাঠাতে সক্ষম হয়েছে ফ্রান্স। তাছাড়া, শীঘ্রই ভারতে শতাধিক অক্সিজেন কনসেন্ট্রেটর এবং উচ্চমান সম্পন্ন ভেন্টিলেটর পাঠানোর পরিকল্পনা রয়েছে বলেও জানায় তাঁরা।



গত ২৬ মে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং ফরাসী রাষ্ট্রপতি ইমানুয়েল ম্যাক্রোর ফোনালাপের পরপরই ফ্রান্সের তরফে এই সহায়তা বৃদ্ধির ঘোষণা এসেছে বলে জানিয়েছেন ভারতে অবস্থানরত ফরাসী রাষ্ট্রদূত ইমানুয়েল লেনেন। এসময় মহামারীর বিরুদ্ধে একযোগে কাজ করার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন তিনি।



উল্লেখ্য, করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে বিপর্যস্ত ভারতের পাশে ফরাসী সরকার ছাড়াও ফ্রান্সের বেসামরিক জনগণ, বিভিন্ন এনজিও, উন্নয়ন সংস্থা সমূহ সর্বাত্মক ভাবে সাহায্যে এগিয়ে এসেছে। এই সহায়তার পরিমাণ প্রায় ৫৫ কোটি রূপীরও বেশি।