ফিলিস্তিনে মানবাধিকার লঙ্ঘন তদন্তের প্রস্তাবে ভারত সহ মোট ১৪টি দেশ ভোটদানে বিরত থাকে।

ফিলিস্তিন-ইসরায়েল ইস্যুতে নিরপেক্ষ ভূমিকা অবলম্বন ভারতের জন্য নতুন নয় বলে দাবি করেছেন ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র অরিন্দম বাগচী। ০৩ জুন, বৃহস্পতিবার, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক নিয়মিত ব্রিফিং এ সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন তিনি। পূর্বেও ইসরায়েল-ফিলিস্তিন ইস্যুতে জাতিসংঘ আয়োজিত ভোটাভুটিতে ভারত ভোট দানে বিরত ছিলো বলে মন্তব্য করেন বাগচী।

সম্প্রতি ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনের হামাসের মধ্যে হওয়া ১১ দিন ব্যাপী রক্তক্ষয়ী সংঘাতের তদন্ত করতে যাচ্ছে জাতিসংঘের মানবাধিকার পরিষদ। এই সংঘাত তদন্তের দাবিতে তোলা একটি প্রস্তাবের বিষয়ে গত ২৭ মে, বৃহস্পতিবার, ভোটাভুটি হয় জাতিসংঘের মানবাধিকার পরিষদে। এতে তদন্তের পক্ষে মত দেয় পরিষদের ফোরামের বেশির ভাগ সদস্য। তবে এতে ভোটদান থেকে বিরত থাকে ভারত।

ইসলামী সহযোগিতা সংস্থা - ওআইসি এবং জাতিসংঘের ফিলিস্তিনের প্রতিনিধি মিলে ইসরায়েল–হামাস সংঘাতের তদন্তের জন্য প্রস্তাবটি পেশ করেন। গত ২৭ মে সারাদিন ওই প্রস্তাবের ওপর অধিবেশন চলে। এরপর হয় ভোটাভুটি। এতে জাতিসংঘের মানবাধিকার পরিষদের ৪৭ সদস্যের ফোরামের মধ্যে ২৪টি দেশ পক্ষে এবং নয়টি দেশ বিপক্ষে ভোট দেয়। আর ভারত সহ মোট ১৪টি দেশ এতে ভোটদানে বিরত থাকে।

তদন্ত প্রস্তাবের পক্ষে ভোট দেয়া ২৪ টি দেশের মধ্যে উল্লেখযোগ্য, চীন, আর্জেন্টিনা, বাংলাদেশ, বাহরাইন, ইন্দোনেশিয়া, মেক্সিকো, নমিবিয়া, বলিভিয়া, রাশিয়া, ফিলিপাইন এবং ভেনিজুয়েলা।

অন্যদিকে, প্রস্তাবের বিরুদ্ধে ভোট দেয়া দেশ গুলোর মধ্যে রয়েছে, অস্ট্রিয়া, বুলগেরিয়া, ক্যামেরুন, চেক প্রজাতন্ত্র, জার্মানী, মালাউই, মার্শাল দীপপুঞ্জ, যুক্তরাজ্য এবং উরুগুয়ে।

ভোট দানে বিরত ১৪ টি দেশের মধ্যে রয়েছে, ভারত, ব্রাজিল, ডেনমার্ক, ফ্রান্স, ইতালি, জাপান, নেপাল, কোরিয়া প্রজাতন্ত্র, নেদারল্যান্ডস, ফিজি, বাহামাস, পোল্যান্ড, টোগো, ইউক্রেন।

ভোটাভুটির পরই ভারতের নিরপেক্ষ ভূমিকায় উদ্বেগ প্রকাশ করে ভারতীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্করকে চিঠি লিখেন ফিলিস্তিনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী রিয়াদ আল মালেকী। তবে, মালেকী এমন চিঠি নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন করা অন্য দেশগুলোকেও পাঠিয়েছেন বলে অভিমত প্রকাশ করেন বাগচী।