ভারত মূলত সামাজিক সচেতনতা গড়ে তোলার মাধ্যমে এইচআইভি এইডস প্রতিরোধে কাজ করছে

নতুন করে সংক্রমিত হওয়ার হার শুন্যের কোটায় আনতে পারলে আগামী ১০ বছরের মধ্যে এইডস নির্মূল সম্ভব বলে মন্তব্য করেছেন ভারতীয় কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষ বর্ধন। গত ১০ জুন, বৃহস্পতিবার, জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭৫ তম অধিবেশনে এইডস সম্পর্কিত উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকে এ বক্তব্য দেন তিনি।

সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ভারত অত্যন্ত সচেতন রয়েছে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, “ভারত ২০৩০ সালের মধ্যে এইডস এর সম্পূর্ণ নির্মূল চায়। বর্তমান সংক্রমণের হার শুন্যের কোটায় নামিয়ে আনতে পারলে আর মাত্র ১১৫ মাসেই আমাদের কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্য অর্জন সম্ভব।”

ভারত মূলত সামাজিক সচেতনতা গড়ে তোলার মাধ্যমে এইচআইভি এইডস প্রতিরোধে কাজ করছে বলে জানান মন্ত্রী। পাশাপাশি ভারতে প্রায় ১৪ লক্ষ এইডস রোগীকে নিয়মিত চিকিৎসা সেবা দেয়া হচ্ছে বলে জানান তিনি। একই সঙ্গে, প্রান্তিক পর্যায়ের জনগোষ্ঠীকে সচেতন করতে নিয়মিত সচেতনতা ক্যাম্পেইন পরিচালনা সহ সরকারি-বেসরকারী বিভিন্ন উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলে জানান মন্ত্রী। তাছাড়া, আফ্রিকায় এইচআইভি আক্রান্ত লক্ষ লক্ষ রোগীও সুস্থ থাকতে নিয়মিত ভারতে তৈরী ওষুধ সেবন করে চলেছেন বলে মন্তব্য করেন তিনি।

নিজ বক্তব্যে ‘ভারতীয় জাতীয় এইডস নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচি’ সম্পর্কে শ্রোতাদের ধারণা দেন হর্ষ বর্ধন। একই সঙ্গে, এইডস পরীক্ষায় আধুনিকায়ন করা হয়েছে বলেও দাবি করেন তিনি।

এইচআইভি প্রতিরোধ এবং চিকিৎসার জন্য ভারত সরকার দেশব্যাপী সচেতনতা বাড়ানোর পাশাপাশি বিভিন্ন সরকারী এবং বেসরকারী প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সমঝোতা স্বাক্ষর করেছে বলেও জানান মন্ত্রী।