বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠায় চ্যালেঞ্জ, সেকেলে ব্যবস্থাপনায় সুরক্ষা নিশ্চিত হয়না: প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং

ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলের রাষ্ট্রসমূহের সার্বভৌমত্ব নিশ্চায়ন পূর্বক সকলের অন্তর্ভূক্তিমূলক মুক্ত অংশগ্রহণ নিশ্চিতের আহবান জানিয়েছেন ভারতীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং। তিনি বলেন, “ভারত এই অঞ্চলে শান্তি, স্থিতিশীলতা এবং সমৃদ্ধির প্রচারের জন্য পরিবর্তিত দৃষ্টিভঙ্গি এবং মূল্যবোধের মাধ্যমে সকলের সঙ্গে সুসম্পর্ক স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছে।”



১৬ জুন, বুধবার, অষ্টম আশিয়ান প্রতিরক্ষা মন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠকে (এডিএমএম প্লাস) এসব কথা বলেন মন্ত্রী। উল্লেখ্য, এডিএমএম প্লাস হলো আশিয়ান ভূক্ত দশটি দেশ এবং আশিয়ান সংলাপে অংশীদার আরও আটটি (অস্ট্রেলিয়া, চীন, ভারত, জাপান, নিউজিল্যান্ড, রিপাবলিক কোরিয়া, রাশিয়া এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র) দেশের প্রতিরক্ষা মন্ত্রীদের সমন্বয়ে অনুষ্ঠিত বার্ষিক বৈঠক।



চলতি বছর ব্রুনাই এডিএমএম প্লাস ফোরামের সভাপতিত্ব করছে।



বৈঠকে উপস্থিত রাষ্ট্রসমূহকে পারস্পরিক সকল বিরোধ মেটানোর জন্য আন্তর্জাতিক বিধি ও আইন মেনে চলার মাধ্যমে শান্তিপূর্ণ সমাধানের প্রতি জোর দিতে আহবান জানান রাজনাথ সিং। এসময়, আঞ্চলিক এবং আন্তর্জাতিক প্রতিরক্ষা নিশ্চিতকরণে ভারতের দৃষ্টিভঙ্গিও সকলের সামনে তুলে ধরেন মন্ত্রী। বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠায় চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় সেকেলে ব্যবস্থাপনায় সুরক্ষা নিশ্চিত হয়না বলে এসময় সবাইকে সতর্ক করেন তিনি।



নিজের বক্তব্যে প্রতিরক্ষামন্ত্রী বলেন, “সন্ত্রাসবাদ এবং মৌলবাদ শান্তির জন্য বড় হুমকি। নিরাপত্তা বিঘ্নিত করে সন্ত্রাসবাদ-সহ মৌলবাদ।…যারা সন্ত্রাসবাদে মদদ দেয়, অর্থ দেয় এবং সহায়তা করে তাদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেওয়া জরুরি।”



ফিনান্সিয়াল অ্যাকশন টাস্ক ফোর্সের (এফএটিএফ) সদস্য হিসেবে সন্ত্রাসবাদ-বিরোধী যুদ্ধে ভারত প্রতিজ্ঞাবদ্ধ বলে অভিমত ব্যক্ত করেন তিনি।



বক্তব্যের এক পর্যায়ে, করোনা মহামারীতে বিশ্বব্যাপী হওয়া অর্থনৈতিক বিঘ্নের বিষয়েও কথা বলেন রাজনাথ। তিনি বলেন, বিশ্বব্যাপী অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের পথে এগিয়ে নিতে সকল বয়সের মানুষকে টিকার আওতায় আনতে হবে। এসময়, করোনা ভ্যাকসিনের উপর থেকে পেটেন্ট প্রত্যাহার এবং ভ্যাকসিন সরবরাহ বৃদ্ধির বিষয়েও কথা বলেন মন্ত্রী।



করোনা পরিস্থিতিতে নানা ধরণের বাধ্যবাধকতা থাকা সত্ত্বেও এডিএমএম প্লাস সভা সফলভাবে আয়োজনের জন্য এবারের সভাপতি ব্রুনাই এর প্রশংসা করেন রাজনাথ। বৈঠকে, ভারতের পক্ষে প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং ছাড়া আরও উপস্থিত ছিলেন, প্রতিরক্ষা সচিব ড. অজয় কুমার, সমন্বিত প্রতিরক্ষা কর্মীদের চিফ অব স্টাফ কমিটির ভাইস এডমিরাল অতুল কুমার জৈন এবং প্রতিরক্ষা ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ।