চলতি সপ্তাহের শুরুতে দক্ষিণ সুদানে শান্তি প্রতিষ্ঠায় গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখায় ১৩৫ ভারতীয় এবং ১০৩ লঙ্কান সৈন্যকে সম্মাননা পদক দেয় জাতিসংঘ

দক্ষিণ সুদানে জাতিসংঘ পরিচালিত শান্তিরক্ষী মিশনে পারস্পরিক আস্থা এবং দৃঢ় বিশ্বাসের বন্ধনে একত্রে কাজ করছে ভারতীয় এবং শ্রীলঙ্কার সৈন্যবাহিনী।



স্বীয় ক্ষেত্রে উভয়েই রাখছে নিজ নিজ দক্ষতার স্বাক্ষর। দক্ষিণ সুদানের গুরুত্বপূর্ণ অংশে যেমন, বোর, পাইবোর এবং আকোবোর মতো অঞ্চলে শান্তি প্রতিষ্ঠায় দারুণ সক্ষমতার পরিচয় দিচ্ছে ভারতীয় বাহিনী। সেসব অঞ্চলে মানবিক সহায়তার পাশাপাশি ভেটেরিনারি ক্যাম্প সহ অন্যান্য সেবামূলক কার্যক্রম পরিচালনা করছে তাঁরা। অন্যদিকে, পূর্বে দুটো হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত হওয়ার পরও ‘ব্লু বেরেটস এভিয়েশন ইউনিট’ থেকে আসা লঙ্কান শান্তিরক্ষীরা দক্ষিণ সুদানের শান্তি রক্ষায় নিরলস পরিশ্রম করে চলেছেন।



গত ১৭ জুন, বৃহস্পতিবার, কলম্বোয় নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশন জানিয়েছে, ভারত এবং শ্রীলঙ্কার বিভিন্ন জাতিগোষ্ঠীর অন্তর্ভূক্ত সৈন্যদের সমন্বয়ে দক্ষিণ সুদানে মিশনের জন্য শান্তিরক্ষী নির্বাচন করা হয়েছিলো। প্রায় ২৪১৮ জন ভারতীয় এবং ৬৮৬ জন লঙ্কান সৈন্য সেখানে মিশনে অংশ নিয়েছেন, যা দক্ষিণ সুদানে কর্মরত শান্তিরক্ষী বাহিনীর মোট সদস্যের প্রায় ২০ শতাংশেরও বেশি।



চলতি সপ্তাহের শুরুতে দক্ষিণ সুদানে শান্তি প্রতিষ্ঠায় গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখায় ১৩৫ ভারতীয় এবং ১০৩ লঙ্কান সৈন্যকে সম্মাননা পদক দেয় জাতিসংঘ। এর প্রেক্ষিতে তাঁদের অসামান্য অর্জনের জন্য সবাইকে অভিনন্দন জানিয়েছেন জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা বাহিনীতে কমান্ডার হিসেবে দায়িত্ব পালনরত ভারতীয় সেনাবাহিনীর লেফটেন্যান্ট জেনারেল শৈলেশ তিনাইকার। তিনি ছাড়াও, পদক প্রাপ্ত সকল সেনার কর্মস্পৃহা এবং শান্তি প্রতিষ্ঠায় একাগ্রতার ভূয়সী প্রশংসা করেন আরেক সেক্টর কমান্ডার (ইস্ট) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল দীপক কুমার বানিয়া।



উল্লেখ্য, কাজের ক্ষেত্রে ভারতীয় সৈন্যদের নিষ্ঠা এবং কর্তব্য পরায়ণতা শান্তিরক্ষী মিশনে অন্যতম আলোচ্য বিষয়। প্রায়ই ভারতীয় সৈন্যগণ নিজেদের অসামান্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকার জন্য জাতিসংঘ কর্তৃক সম্মাননা পেয়ে থাকেন। এখনও অবধি প্রায় ৪৯ টি মিশনে অংশ নিয়ে ১৫৭ জন সৈন্য প্রাণ হারিয়েছেন। অন্যদিকে, লঙ্কান সৈন্যগণ, বিশেষত তাঁদের বিমান চলাচল ইউনিটটি বিশ্বব্যাপী শান্তিরক্ষায় ভূয়সী প্রশংসা অর্জন করেছে।



সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য বিষয় হচ্ছে, প্রতিরক্ষা এবং নিরাপত্তা সংক্রান্ত বিষয় সমূহে ভারত এবং শ্রীলঙ্কা বরাবরই রাজনৈতিক এবং সামরিকভাবে গভীর সম্পর্ক বজায় রেখে চলে। সমুদ্রে মহড়া, যৌথ সেনা অনুশীলন সহ প্রভৃতি বিভিন্ন ক্ষেত্রে বহুমাত্রিক সম্পর্ক রয়েছে দেশ দুটোর। কিছুদিন পূর্বেও শ্রীলঙ্কার সমুদ্র সীমায় একটি জাহাজে আগুন লাগার পর সে আগুন নিয়ন্ত্রণে জোরদার ভূমিকা রাখে ভারত এবং পরিবেশগত বিপর্যয় এড়াতে সাহায্য করে। তাছাড়াও, যেকোনো দুর্যোগ কিংবা প্রতিকূল পরিস্থিতিতে দেশ দুটো একত্রে বন্ধুত্বপূর্ণ পরিবেশের মাধ্যমে কাজ করে এসেছে।