আমেরিকান ফার্ম গুলো সাধারণত সপ্তাহকাল ব্যবধানে নতুন রেটিং প্রকাশ করে থাকে।

করোনাকালীন সময়ে বিভিন্ন পদক্ষেপের জেরে বারবার বিরোধীদের সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছে নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বাধীন কেন্দ্রীয় সরকারকে। কিন্তু তারপরও এতটুকু কমেনি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর জনপ্রিয়তা। সে চিত্রই উঠে এলো ‘মর্নিং কনসাল্ট’ নামক একটি মার্কিন ডেটা ইন্টেলিজেন্স ফার্মের সমীক্ষায়।



সংস্থাটির সাম্প্রতিক এক জরিপ বলছে এখনও ৬৬ শতাংশ মানুষের সমর্থন রয়েছে প্রধানমন্ত্রী মোদীর নেতৃত্বের উপর। অন্যদিকে তাঁর উপর ভরসা হারিয়েছেন প্রায় ২৮ শতাংশ মানুষ। ভারতের প্রায় দু হাজারেরও বেশি প্রাপ্তবয়স্ক মানুষ এই জরিপে অংশগ্রহণ করে।



এদিকে বিশ্বের ১৩ টি দেশের রাষ্ট্র বা সরকার প্রধানদের উপর হওয়া এই সমীক্ষায় উপরোক্ত জনসমর্থন নিয়ে শীর্ষে রয়েছেন মোদী। এ তালিকায় তিনি পেছনে ফেলেছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, অস্ট্রেলিয়া, কানাডা, জার্মানী, ব্রাজিল এবং ফ্রান্সের মতো দেশের রাষ্ট্রপ্রধানদের। গত ১৭ জুন, বৃহস্পতিবার, 'গ্লোবাল অ্যাপ্রুভাল রেটিং ট্র্যাকার' -এর তালিকাটি প্রকাশ করে সংস্থাটি।



তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন ইতালির প্রধানমন্ত্রী মারিও দ্রাঘি। তাঁর উপর ভরসা দেখিয়েছেন ইতালির ৬৫ শতাংশ মানুষ। এরপরই তালিকায় রয়েছেন মেক্সিকোর প্রেসিডেন্ট অ্যান্দ্রেস ম্যানুয়েল লোপেজ ওব্রাদোর। তাঁর উপর ভরসা রেখেছেন ৬৩ শতাংশ মানুষ।



এরপর তালিকায় রয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন। তাঁর উপর ভরসা রেখেছেন ৫৪ শতাংশ মানুষ। জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঞ্জেলা মার্কেল রয়েছেন এর পরে। তাঁর উপর ৫৩ শতাংশ জার্মান ভরসা রেখেছেন। একই শতাংশ ভরসা রয়েছে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের উপর।



এরপর তালিকায় রয়েছেন কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো। তাঁর উপর ভরসা রেখেছেন সেদেশের ৪৮ শতাংশ মানুষ। ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের উপর ভরসা রয়েছে ৪৪ শতাংশ ব্রিটিশ নাগরিকের। দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন জে-ইন-এর উপর ভরসা রয়েছে ৩৭ শতাংশ মানুষের।



এছাড়া, ক্রমতালিকায় পর্যায়ক্রমে রয়েছেন স্পেনের রাষ্ট্রপ্রধান পেদ্রো সাঞ্চেজ (৩৬ শতাংশ), ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জায়ের বোলসোনারো (৩৫ শতাংশ), ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ (৩৫ শতাংশ), জাপানের প্রধানমন্ত্রী ইয়োশিহিদি সুগা (২৯ শতাংশ)।