অতীতের যেকোনো সময়ের চেয়ে বর্তমানে ভারত-নিউজিল্যান্ডের মধ্যকার কৌশলগত সম্পর্ক অনেক বেশি জোরদার করা প্রয়োজন বলে মন্তব্য করেন মুরালিধরণ।

পারস্পরিক স্বার্থের ভিত্তিতে অংশীদারিত্বে ভারত-নিউজিল্যান্ড সম্পর্কের বিশাল সম্ভাবনা রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন ভারতীয় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ভি মুরালিধরণ। ২৩ জুন, বুধবার, ভারত-নিউজিল্যান্ড বিজনেস কাউন্সিলের মন্ত্রী পর্যায়ের অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, “ভারত এবং নিউজিল্যান্ডের মধ্যে এখনও এমন অনেক ক্ষেত্রে কাজ করা বাকি রয়েছে, যা থেকে উভয় রাষ্ট্র লাভবান হতে পারে।”

মুরালিধরণ বলেন, “ভারত এবং নিউজিল্যান্ড বর্তমানে নানান ক্ষেত্রে দৃঢ় বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক উপভোগ করছে, যার মধ্যে দু দেশের জনগণের মধ্যকার পারস্পরিক ভাতৃত্বের বন্ধন এবং ঐতিহ্য, কমনওয়েলথ, ক্রিকেট, হকির মতো জনপ্রিয় বিভিন্ন খেলা, পর্বতারোহণ উল্লেখযোগ্য।”

অতীতের যেকোনো সময়ের চেয়ে বর্তমানে ভারত-নিউজিল্যান্ডের মধ্যকার কৌশলগত সম্পর্ক অনেক বেশি জোরদার করা প্রয়োজন বলে নিজের বক্তব্যে মন্তব্য করেন মুরালিধরণ। তিনি আরও বলেন, “ভারত এবং নিউজিল্যান্ড শান্তিপূর্ণ, অংশীদারিত্বপূর্ণ এবং সমৃদ্ধ ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠায় আগ্রহী। তাই অতীতের যেকোনো সময়ের চেয়ে আমাদের বন্ধন আরও দৃঢ় করতে হবে। ভারত এক্ষেত্রে সবসময়ই আগ্রহী। আমাদের মধ্যকার বাণিজ্য ও বিনিয়োগের মাত্রা আরও বাড়ানোর মাধ্যমে শক্তিশালী অর্থনৈতিক সম্পর্ক এবং দৃষ্টিভঙ্গি তৈরী করতে হবে।”

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্যে, বিশেষ করে পরিষেবা খাতে ইতিবাচক প্রবৃদ্ধি হয়েছে জানিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, “শিক্ষা ও পর্যটন শিল্পে অগ্রগতি হয়েছে। তবে মহামারীর কারণে উভয় ক্ষেত্রই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। আমাদেরকে তাই নতুন উদ্যমে শুরুর পরিকল্পনা ও উপায় খুঁজতে হবে।”

এসময়, উভয় পক্ষেই কৃষি, দুগ্ধ এবং বনায়ন খাতে অগ্রাধিকার দেয়ার উপর জোর দেন তিনি। পাশাপাশি ডিজিটাল প্রযুক্তি এবং বেসামরিক মহাকাশ সহযোগিতার মতো বিষয়গুলোতেও সম্পর্ক গড়তে আগ্রহ প্রকাশ করেন মুরালিধরণ।

নিজ বক্তব্যে, ভারতকে কেবল একটি বৃহৎ বাজার নয়, একটি বিরাট প্রতিভা পুল হিসেবে আখ্যা দেন তিনি। এসময় ভারতে বিনিয়োগের জন্য আহবান জানান তিনি। ভারতের স্টার্ট আপ গুলোতে বিনিয়োগকারীদের যথেষ্ট সুযোগ প্রদান করা হয় বলেও জানান প্রতিমন্ত্রী।

আলোচনাকালে, নিউজিল্যান্ডে বসবাসরত ভারতীয় বংশোদ্ভূত লোকদের স্বীয় কর্মক্ষেত্রে সাফল্য বিবেচনায় উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন ভারতীয় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী। উল্লেখ্য, প্রতিবছর নিউজিল্যান্ড সরকার ভারতীয় শিক্ষার্থীদের নিউজিল্যান্ডে পড়তে যাবার জন্য যথেষ্ট স্কলারশিপ এবং সুযোগ প্রদান করে থাকে। তাছাড়া অসংখ্য ভারতীয় স্থায়ীভাবে নিউজিল্যান্ডে বসবাস করছেন।