‘ইন্দ্র-২০২১’ মহড়ায় দু দেশেরই প্রায় আড়াইশ জন করে সামরিক সদস্য অংশ নিতে চলেছেন।

নিজেদের মধ্যকার ঐতিহাসিক কূটনৈতিক সম্পর্কের ভিত মজবুতকরণে সামরিক ক্ষেত্রে নিয়মিত নৌ, সেনা এবং বিমান -এই তিন বাহিনীর সমন্বয়ে যৌথ সামরিক মহড়া আয়োজন করে থাকে ভারত এবং রাশিয়া। এরই ধারাবাহিকতায় আগামী আগস্ট মাসের ০১ তারিখ হতে ১৩ তারিখ অবধি ‘ইন্দ্র-২০২১’ নামে তেরো দিন ব্যাপী যৌথ সামরিক মহড়া আয়োজন করতে চলেছে দেশ দুটো।



জানা গিয়েছে, রাশিয়ার দক্ষিণাঞ্চলের ভলগোগ্রাড এলাকার প্রুডবুই ঘাটিতে উক্ত মহড়াটি আয়োজনের পরিকল্পনা করা হচ্ছে। ভারতীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গিয়েছে, এটি দেশ দুটোর মধ্যকার যৌথ মহড়ার দ্বাদশ সংস্করণ হতে চলেছে।



মূলত, সন্ত্রাসবাদ বিরোধী ভূমিকায় পারস্পরিক সম্পর্ক, স্বার্থ রক্ষা এবং আস্থা বৃদ্ধি, অংশীদারিত্বকে যুগোপযুগী করে গড়ে তোলা এবং উন্নত সামরিক প্রশিক্ষণের লক্ষ্যে যৌথ মহড়ার আয়োজন করে থাকে ভারত এবং রাশিয়া। এছাড়াও, গবেষণা, অস্ত্র তৈরী এবং ব্যবস্থাপনা, সামরিক প্রযুক্তি সহ নানা বিষয়ে একে অন্যকে সহযোগিতা করে থাকে দেশ দুটো।



একই সঙ্গে, উভয় রাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী প্রতি বছর ভারত কিংবা রাশিয়াতে যৌথ বৈঠকে মিলিত হোন এবং আঞ্চলিক ও বৈশ্বিক নানা ইস্যুতে মতবিনিময় ও গতিবিধি নির্ধারণ করে থাকেন।



প্রসঙ্গত, ২০০৩ সাল থেকে দু দেশ ‘ইন্দ্র’ নামে সামরিক মহড়া আয়োজন করে আসছে এবং ২০১৭ সাল থেকে প্রথম তিন-বাহিনী যৌথ মহড়া আয়োজন করা হয়। দেশ দুটোর মধ্যে সর্বশেষ তিন-বাহিনী যৌথ মহড়া আয়োজিত হয়েছিলো ২০১৯ সালের ১০-১৯ ডিসেম্বর। সেবার ভারতের বাবিনা, পুনে এবং গোয়াতে মহড়ার আয়োজন করা হয়।



উল্লেখ্য, ভারত এবং রাশিয়ার সামরিক প্রযুক্তিগত সহযোগীতার সার্বিক দিক পর্যালোচনা ও পর্যবেক্ষণের জন্য একটি প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামোও দাঁড় করিয়েছে দেশ দুটো। বিগত ২০০০ সালে গঠিত ভারত-রাশিয়া আন্তঃসরকারী সামরিক প্রযুক্তিগত সহযোগিতা কমিশন (আইআরআইজিসি-এমটিসি) এই কাঠামোর শীর্ষে রয়েছে।



এই কমিটির অধীনে দুটো কার্যকরী কমিটি এবং ৭ টি উপ-কমিটি রয়েছে। তাঁরা সংশ্লিষ্ট বিষয় সমূহে বিভিন্ন অ্যারে পর্যালোচনা পূর্বক স্বীয় মতামত ব্যক্ত করে থাকে। ২০০৮ সালে এই কমিটি গঠিত হয়। সেখানে যৌথভাবে সভাপতিত্ব করে থাকেন ভারতীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব এবং রাশিয়ার ফেডারেল সার্ভিস ফর মিলিটারি টেকনিক্যাল কোঅপারেশন (এফএসএমটিসি) এর ডিরেক্টর।