নতুন এই রাস্তার সাহায্যে সংশ্লিষ্ট এলাকার আর্থ সামাজিক উন্নয়নের পাশাপাশি পর্যটকদেরও সুবিধে হবে।

পূর্ব লাদাখের উমিংলা পাসে বিশ্বের উচ্চতম রাস্তা তৈরি করল ভারতের বর্ডার রোডস অর্গানাইজেশন (বিআরও)। ১৯,৩০০ ফুট উচ্চতায় তৈরি এই রাস্তা মাউন্ট এভারেস্টের বেস ক্যাম্পের থেকেও উঁচুতে অবস্থিত বলে এক বিবৃতিতে দাবি করেছে ভারতের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়। নতুন এই রাস্তাটি ৫২ কিলোমিটার দীর্ঘ।



নেপালে মাউন্ট এভারেস্টের সাউথ বেস ক্যাম্পটি ১৭,৫৯৮ ফুট উচ্চতায় অবস্থিত৷ আর তিব্বতে থাকা নর্থ বেস ক্যাম্পটি ১৬,৯০০ ফুট উচ্চতায় রয়েছে। এতোদিন বিশ্বের উচ্চতম রাস্তার স্বীকৃতি ছিল বলিভিয়ায় ১৮,৯৫৩ ফুট উচ্চতায় অবস্থিত একটি রাস্তার। পূর্ব লাদাখের উমিংলা পাসে তৈরি এই নতুন রাস্তা সেই রেকর্ড ভেঙে নতুন নজির তৈরি করেছে।



পূর্ব লাদাখে তৈরি এই নতুন রাস্তাটি চুমার সেক্টরের গুরুত্বপূর্ণ শহর গুলোকে পরস্পরের সঙ্গে যুক্ত করবে। নতুন এই রাস্তার সাহায্যে সংশ্লিষ্ট এলাকার আর্থ সামাজিক উন্নয়নের পাশাপাশি পর্যটকদেরও সুবিধে হবে।



বিআরও-র প্রশংসা করে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়, “নিজেদের জেদ এবং দৃঢ়তার জন্যই বিআরও-র সদস্যরা দুর্গম এলাকা এবং আবহাওয়ার প্রতিকূলতাকে জয় করে এই সাফল্য পেয়েছেন।”



ওই অঞ্চলে প্রতিকূল আবহাওয়ার কারণে যে কোনও পরিকাঠামো নির্মাণই কঠিন চ্যালেঞ্জ। শীতকালে এই অঞ্চলে তাপমাত্রা মাইনাস চল্লিশ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নেমে যায়। পাশাপাশি উচ্চতাজনিত কারণে সমতলের তুলনায় এই এলাকায় অক্সিজেনের মাত্রাও পঞ্চাশ শতাংশ কমে যায়। বলিভিয়ায় এতদিন পৃথিবীর উচ্চতম রাস্তা হিসেবে যেটি স্বীকৃত ছিল, সেটি উতুরুনসু আগ্নেয়গিরি সঙ্গে সংযুক্ত ছিল।



সরকারি বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “নতুন এই রাস্তাটি ওই অঞ্চলের মানুষের কাছে আশীর্বাদ হিসেবে প্রমাণিত হবে। কারণ নতুন এই রাস্তার সৌজন্যেই লেহর ডেমচক থেকে চিসুমলে যাওয়ার একটি বিকল্প পথ পাওয়া যাবে।”



প্রসঙ্গত, লাদাখের খারদুং লা পাসও ১৭,৬০০ ফিট উচ্চতায় অবস্থিত রাস্তা। পৃথিবীর উচ্চতম রাস্তাগুলোর মধ্যে খারদুং লা পাসেরও নাম রয়েছে।