টিএস তিরুমূর্তি বলেন, “আফগানিস্তানের নিকটবর্তী রাষ্ট্র হিসেবে সেখানকার চলমান পরিস্থিতি আমাদের জন্য খুবই উদ্বেগের।”

জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদকে আফগানিস্তানের চলমান সকল সহিংসতা বন্ধ করতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়ার আহবান জানিয়েছে ভারত। গত শুক্রবার, নিরাপত্তা পরিষদের এক বৈঠকে সেখানে নিযুক্ত ভারতের স্থায়ী প্রতিনিধি টিএস তিরুমুর্তি এসব কথা বলেন।



ভারতীয় এই কূটনীতিক বলেন, “আফগানিস্তানে শান্তি ও স্থিতিশীলতা নিশ্চিত করতে সব ধরণের পদক্ষেপ নিবে ভারত। সর্বাবস্থায় দেশটির পাশে দাঁড়াবে ভারত। নিকটবর্তী রাষ্ট্র হিসেবে সেখানকার চলমান পরিস্থিতি আমাদের জন্য খুবই উদ্বেগের।”



তিনি জোর দিয়ে বলেন, “আফগানিস্তান কোনোভাবেই তাঁর অতীতে ফিরে যেতে পারেনা। এই অঞ্চলে সন্ত্রাসীদের নিরাপদ আশ্রয় অবিলম্বে ধ্বংস করতে হবে। সন্ত্রাসীদের সাপ্লাই চেইন ধ্বংস করতে হবে। এটাও নিশ্চিত করতে হবে যেনো আফগানিস্তানের ভূমি অন্য কেউ অসৎ উদ্দেশ্যে ব্যবহার না করতে পারে।”



তিনি আরও বলেন, “কাউন্সিলের সভাপতি হিসাবে আমরা অবশ্যই সদস্য রাষ্ট্রগুলোর উদ্যোগকে সমর্থন করব যা দেশে স্থিতিশীলতা আনতে পারে। ভারত ধারাবাহিকভাবে সন্ত্রাসবাদ মোকাবেলায় আলোকপাত করেছে, কাউন্সিল এবং বাইরে উভয় আলোচনার ভেতরে। ভারত সবসময় একটি স্বাধীন, শান্তিপূর্ণ, গণতান্ত্রিক স্থিতিশীল এবং সমৃদ্ধ আফগানিস্তান দেখতে চায়।”



টিএস তিরুমূর্তি বলেন, “আফগানিস্তানের পরিস্থিতি সার্বিকভাবেই গুরুতর উদ্বেগের বিষয়। সহিংসতা অব্যাহত রয়েছে এবং প্রকৃতপক্ষে বৃদ্ধি পেয়েছে। জাতিসংঘ জানিয়েছে, বেসামরিক হতাহতের সংখ্যা বাড়ছে। নারী, শিশু এবং সংখ্যালঘুদের পরিকল্পিতভাবে টার্গেট করা হচ্ছে। সংখ্যালঘুরা নির্যাতিত হচ্ছে।”



আঞ্চলিক শান্তি ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে তাই নিরাপত্তা পরিষদকে দ্রুত পদক্ষেপ নেয়ার আহবান জানান তিনি। পাশাপাশি তালেবানদেরকে সর্ব রকমের সহিংসতা বন্ধ করে এবং অন্যান্য সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর সঙ্গে যোগাযোগ পরিহার করে আলোচনায় আসার শর্তও জুড়ে দেন তিনি।



প্রসঙ্গত, আফগানিস্তানে মার্কিন ও ন্যাটো সেনা প্রত্যাহারের ঘোষণার পর থেকেই বেড়ে চলেছে সহিংসতা। তালেবানরা আফগানিস্তানের ভূমি দখলে মরিয়া হয়ে উঠেছে। অপরদিকে ভূখন্ড বাঁচাতে আপ্রাণ চেষ্টা চালাচ্ছে আশরাফ গনির সরকার।