আরকেএস ভাদুরিয়া বলেন, বিশ্ব মঞ্চে চীনের হঠাৎ উত্থানের প্রেক্ষিতে ভবিষ্যতে চীনকে মোকাবেলার জন্যেও প্রস্তুত থাকতে হবে।

চীনের সঙ্গে পূর্ণাঙ্গ যুদ্ধের যেকোনো সম্ভাবনা উড়িয়ে দিয়ে ভারতীয় বিমান বাহিনীর প্রধান আরকেএস ভাদুরিয়া বলেছেন, ভবিষ্যতের নিরাপত্তা চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় শক্তিশালী সক্ষমতা গড়ে তুলতে হবে।

গত ১০ আগস্ট, মঙ্গলবার, নয়াদিল্লি ভিত্তিক থিংক ট্যাঙ্ক ইউনাইটেড সার্ভিস ইনস্টিটিউশন অফ ইন্ডিয়ার সঙ্গে কথা বলার সময় ভাদুরিয়া বলেন, “আমার মনে হয় শত্রুর সঙ্গে বর্তমান সময়ে পূর্ণাঙ্গ প্রচলিত যুদ্ধ সম্ভবপর নয়। এটি এমন এক বিষয়, যা আমরা ভবিষ্যতেও চাইবো না। কিন্তু আমাদেরকে অবশ্যই সর্বাবস্থায় প্রস্তুত থাকতে হবে। আমাদেরকে প্রচলিত যুদ্ধের মুখোমুখি হওয়ার উপযোগী করেই নিজেদের গড়ে তুলতে হবে। সে অনুযায়ী আমাদের সক্ষমতা বৃদ্ধি করতে হবে।”



আরকেএস ভাদুরিয়া আরও বলেন, “বিশ্ব মঞ্চে কূটনীতি ও শক্তিশালী বাজারের কল্যাণে চীনের হঠাৎ উত্থানের প্রেক্ষিতে ভবিষ্যতে চীনের ব্যাপারেও আমাদের প্রস্তুত থাকতে হবে।”

এসময় চীন তিব্বত অঞ্চলে নিজেদের অবকাঠামোগত শক্তি উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি করছে বলে স্মরণ করিয়ে দেন ভাদুরিয়া। তিনি জানান, তাঁর ধারণা চীনা পক্ষ সংশ্লিষ্ট অঞ্চলের সীমান্ত থেকে নামমাত্র কিছু বিমান পিছনের দিকে নিয়ে গেলেও এখনও ভূ-পৃষ্ঠ থেকে আকাশে উৎক্ষেপণ যোগ্য ক্ষেপণাস্ত্র এবং রাডারের মতো উপাদান প্রত্যাহার করে নেয়নি।


চীনের পাশাপাশি পাকিস্তানের ব্যাপারটিও স্মরণ করিয়ে দেন ভাদুরিয়া। পশ্চিম ফ্রন্টে নিজেদের সার্বিকভাবে শক্তিশালী করার ব্যাপারে জোর দেন তিনি।

ভারতীয় বিমানবাহিনী প্রধান আরও বলেন, আমাদের অবশ্যই উচিৎ হবে আমাদের সক্ষমতার বিকাশ ঘটানো। প্রতিবেশীদের বিষয়টি মাথায় রাখা এবং তাঁদের সক্ষমতার বিষয়টিও নজরে রাখা।

এসময় দেশের সম্পদের উপর যেকোনো সম্ভাব্য হামলা ট্র্যাক ও ট্রেস করার জন্যে শক্তিশালী সক্ষমতা তৈরীতে সাইবার স্পেসকে পরবর্তী উপ-প্রচলিত ডোমেইন হিসেবে ব্যবহারের কথা উল্লেখ করেন তিনি। গালওয়ান সীমান্তে গোলযোগের পর থেকে ভারত সাইবার সিকিউরিটির দিকে বিশেষ মনযোগ দিয়েছে বলে স্বীকার করে নেন বিমানবাহিনী প্রধান।

পাশাপাশি বিমানবাহিনীতে রাফাল বিমানের প্রবর্তন এবং অন্তর্ভূক্তি পূর্বের তুলনায় ভারতীয় বিমানবাহিনীর আক্রমণাত্মক সক্ষমতা বাড়িয়েছে বলেও মত দেন তিনি। একই সঙ্গে, আভ্যন্তরীণ কৌশলগত দিক থেকেও ভারতীয় বিমানবাহিনীর সক্ষমতা বৃদ্ধি পেয়েছে বলে অভিমত দেন তিনি। এসময় করোনা মহামারীর বিপর্যয় ঠেকাতে ভারতীয় বিমান বাহিনীর সাহসিকতার এবং দায়িত্ব পালনের প্রশংসা করেন তিনি।