পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বলেছেন, সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে বৈশ্বিক লড়াইয়ে ভারতের ভূমিকা অগ্রগণ্য।

সম্প্রতি ভারতকে উদ্দেশ্য করে পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেহমুদ কুরেশির দেয়া অসম্মানজনক বক্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ করেছে ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। একই সঙ্গে পাক পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্যকে 'অহেতুক' এবং 'অযৌক্তিক' বলেও অভিহিত করে তারা৷



শুক্রবার, ১৩ আগস্ট, সাংবাদিকদের সঙ্গে ব্রিফিংকালে ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র অরিন্দম বাগচী বলেন, "আমরা দাসুর ঘটনায় পাক পররাষ্ট্রমন্ত্রীর অযৌক্তিক প্রতিবেদন দেখেছি। এটি পাকিস্তান কর্তৃক ভারতকে বদনামের আরও একটি চেষ্টা মাত্র। আদতে, গোটা অঞ্চলে জঙ্গিবাদের আশ্রয়দাতা এবং মদদদাতা হিসেবে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে নিজেদের ভূমিকা লুকাতেই এ কাজ করেছে দেশটি।"



এসময় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আরও বলেন, "আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সঙ্গে মিলে সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে বৈশ্বিক লড়াইয়ে ভারতের ভূমিকা অগ্রগণ্য এবং সর্বজন স্বীকৃত।"



উল্লেখ্য, গত ১৪ জুলাই পাকিস্তানের উত্তরাঞ্চলে চীনা প্রকৌশলীদের বহনকারী একটি বাসে আত্মঘাতী বোমা হামলায় ৯ চীনা নাগরিক সহ মোট ১৩ জনের মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। এই হামলার ঘটনার তদন্ত প্রতিবেদনে ভারত ও আফগানিস্তানকে দায়ী করে বিবৃতি দিয়েছে ইসলামাবাদ।



বৃহস্পতিবার পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কোরেশী এক সংবাদ সম্মেলনে তদন্ত প্রতিবেদনটি প্রকাশ করেন। এ সময় তিনি জানান, "জঙ্গিগোষ্ঠীগুলো একই ছাতার নিচে এসে এ ঘটনা ঘটিয়েছে। আফগানিস্তান ভিত্তিক তেহরিক-ই-তালেবান-পাকিস্তান (টিটিপি) এ ঘটনার সঙ্গে সরাসরি জড়িত। আর এ পুরো ঘটনার সঙ্গে পরিষ্কার সংযোগ রয়েছে আফগানিস্তান ও ভারতের গোয়েন্দা সংস্থার।"



সংবাদ সম্মেলনে কোরেশী আরও বলেন, "আমরা তদন্তে দেখেছি, এ ঘটনার পরিকল্পনা ও বাস্তবায়নের সঙ্গে আফগানিস্তানের এনডিএস ও ভারতের র’ এর পরিষ্কার সম্পৃক্ততা রয়েছে"।



প্রসঙ্গত, দাসু জলবিদ্যুৎ প্রকল্পটি চীন-পাকিস্তান অর্থনৈতিক করিডোরের আওতায় অন্যতম একটি প্রকল্প। পাকিস্তানের উত্তর খাইবার পাখতুন প্রদেশে এটি অবস্থিত।