মার্কিন সিনেটর জন কর্নিন বলেন, “সাম্প্রতিক বছরগুলোতে আমাদের সম্পর্ক যেভাবে দৃঢ় হয়েছে, তা দেখে আমি যারপরনাই গর্বিত ও আনন্দিত।”

৭৫ তম বর্ষে পদার্পণ করতে চলেছে বিশ্বের বৃহত্তম গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের স্বাধীনতা। আগামী ১৫ আগস্ট স্বাধীনতা দিবসকে কেন্দ্র করে উৎসাহ-উদ্দীপনার কমতি নেই ভারতীয়দের মাঝে। নানা বর্ণিল আয়োজনের প্রস্তুতি চলছে গোটা দেশজুড়ে।

এই আমেজ আবহের মাঝেই ভারত এবং ভারতবাসীদের স্বাধীনতা দিবসের শুভেচ্ছা জানালেন যুক্তরাষ্ট্রের রিপাবলিকান সিনেটর জন কর্নিন এবং ডেমোক্র্যাট মার্ক ওয়ার্নার সহ বেশ কয়েকজন শীর্ষ মার্কিন নেতৃত্ব। শুভেচ্ছা বার্তা পাঠিয়েছেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত বিখ্যাত মার্কিন নভোচারী সুনিতা উইলিয়ামসও!

বিগত বেশ কিছু বছর যাবতই ভারত এবং যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্কের গতি উর্ধ্বমুখী। এ প্রসঙ্গে ডেমোক্র্যাট সিনেটর মার্ক ওয়ার্নার বলেন, “ভারতের সবাইকে স্বাধীনতার ৭৫ তম বছরে পদার্পণ করায় অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা। বিগত ৭৫ বছর যাবত দেশটি শক্তিশালী এবং স্থিতিশীল গণতন্ত্রের প্রতিমূর্তি হয়ে থেকেছে। বিশ্বের সবচেয়ে বড় দুটো গণতান্ত্রিক দেশের মধ্যকার সম্পর্ক এখন পূর্বের যেকোনো সময়ের চেয়ে দৃঢ়। আশা করছি অদূর ভবিষ্যতেও তা অব্যহত থাকবে।”

করোনা মহামারীকালীন সময়ে ভারত গণতান্ত্রিক চেতনার সুফল টের পেয়েছে বলে অভিমত দেন ওয়ার্নার।

এদিকে মার্কিন সিনেটর জন কর্নিন বলেন, “৭৪ বছর পূর্বে ব্রিটিশ শাসনের হাত থেকে নিজেদের মুক্ত করে গণতন্ত্রের পথে যাত্রা করেছিলো ভারত। ধীরে ধীরে এটি বিশ্বের সবচেয়ে বড় গণতন্ত্রে পরিণত হয়।”

তিনি আরও বলেন, “মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ভারতের মধ্যকার শক্তিশালী সম্পর্কের গুরুত্ব আমরা জানি। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে আমাদের সম্পর্ক যেভাবে দৃঢ় হয়েছে, তা দেখে আমি যারপরনাই গর্বিত ও আনন্দিত।”

আরেক মার্কিন সিনেটর রিক স্কট বলেন, “বিশ্বের সবচেয়ে বড় গণতন্ত্র এবং আমাদের গুরুত্বপূর্ণ মিত্র ভারতের স্বাধীনতা দিবস উদযাপন করতে পেরে যুক্তরাষ্ট্র যারপরনাই আনন্দিত ও গর্বিত। ভারতীয় বংশোদ্ভূত আমেরিকানদের জন্যেও আমরা আনন্দিত এবং গর্বিত।”

এছাড়াও, মার্কিন সিনেট ফরেন রিলেশনস কমিটির চেয়ারম্যান সিনেটর রবার্ট মেনেন্দেজ ভারতকে শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন, “ভারতের স্বাধীনতা দিবসের উৎসব শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে নিউ জার্সি সহ বিশ্বজুড়ে ভারতীয় এবং ভারতীয় বংশোদ্ভূত আমেরিকান বন্ধুদের সঙ্গে যোগ দিতে পেরে আমি যারপরনাই আনন্দিত ও গর্বিত।”

এদিকে, মার্কিন নভোচারী সুনিতা উইলিয়ামস ভারতবাসী সকলকে শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন, “নাসা এবং ইসরোর মধ্যে পৃথিবী এবং মহাকাশ সম্পর্কিত বিজ্ঞান সহ সকল ক্ষেত্রে সহযোগিতার ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে। চন্দ্র এবং মঙ্গলে অভিযান সহ নানা ক্ষেত্রে ঐক্যবদ্ধ সহযোগিতা করে চলেছে প্রতিষ্ঠান দুটো। আশা করছি ভবিষ্যতেও ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক বজায় রেখে ঐক্যবদ্ধ কাজ করে যাবে দু দেশ।”