দু দেশের মধ্যকার পররাষ্ট্র দপ্তরের কর্মকর্তাদের দ্বিতীয় দফা বৈঠকটি গত ১৬ আগস্ট পোর্ট অব স্পেনে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

দ্বিপক্ষীয় আলোচনায় অংশ নিয়েছে ভারত এবং ত্রিনিদাদ ও টোবাগোর পররাষ্ট্র দপ্তরের কর্মকর্তাগণ। বাণিজ্য ও বিনিয়োগের সুযোগ বৃদ্ধিকল্পে এবং দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক জোরদারে উক্ত আলোচনাটি অনুষ্ঠিত হচ্ছে বলে জানিয়েছে ভারতীয় পররাষ্ট্র দপ্তর।



গত ১৬ আগস্ট, সোমবার, ত্রিনিদাদ ও টোবাগোর রাজধানী পোর্ট অব স্পেনে উক্ত বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয়। এটি দু দেশের পররাষ্ট্র কর্মকর্তাদের মধ্যকার দ্বিতীয় দফা বৈঠক।



পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে, উভয় পক্ষই আনঃবাণিজ্য এবং অর্থনৈতিক ও কূটনৈতিক সহযোগিতা সহ অন্যান্য দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের সার্বিক অগ্রগতি পর্যালোচনা করেছে এবং সন্তোষ প্রকাশ করেছে।



মূলত করোনা মহামারীর প্রেক্ষাপটে সৃষ্ট চ্যালেঞ্জ সমূহ উতরে পুনরায় দ্বিপক্ষীয় অংশীদারিত্বের গতি বৃদ্ধি, স্বাস্থ্য সেবা খাতে সহযোগিতা অব্যহত রাখা, প্রযুক্তি খাতে সহযোগিতা বৃদ্ধি করা সহ বিজ্ঞান, নবায়নযোগ্য শক্তি, কৃষি, খাদ্য, পর্যটন, শিক্ষা সহ নানা খাতে দ্বিপক্ষীয় অংশীদারিত্ব বৃদ্ধির বিষয়ে আলোচনা করেন উভয় রাষ্ট্রের প্রতিনিধিগণ।



এছাড়াও, আঞ্চলিক ও বৈশ্বিক নানা ইস্যুতে মতবিনিময় করে দু পক্ষ। বহুপাক্ষিক সংস্থাগুলোতে পারস্পরিক স্বার্থ রক্ষার অঙ্গীকারও পুনর্ব্যক্ত করেন তাঁরা। এছাড়াও, ভারতের বাইরে ভারতের সবচেয়ে বড় সাংস্কৃতিক কেন্দ্র মাউন্ট হোপে দীর্ঘ প্রতীক্ষিত মহাত্মা গান্ধী ইনস্টিটিউট ফর কালচারাল কো-অপারেশন (এমজিআইসিসি) চালুর সফলতায় সন্তোষ প্রকাশ করে ভারতীয় দল।



এসময়, ভারতের তরফে ত্রিনিদাদ ও টোবাগোকে দেয়া করোনা ভ্যাকসিন, কারিগরি ও অর্থনৈতিক সহযোগিতা কর্মসূচির জন্যে ভারতীয় প্রতিনিধিদের নিকট কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন ত্রিনিদাদ ও টোবাগোর প্রতিনিধি দল। আগামী বছর দু দেশের মধ্যকার কূটনৈতিক সম্পর্কের ৬০ তম বার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষ্যে বর্ণাঢ্য কর্মসূচি আয়োজনের ঘোষণা দিয়েছে মিত্র দেশ দুটো।



বৈঠকে ভারতীয় প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব (পূর্ব) রিভা গাঙ্গুলী দাস। অন্যদিকে ত্রিনিদাদ ও টোবাগো দলের নেতৃত্বে ছিলেন সেখানকার পররাষ্ট্র বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের স্থায়ী সচিব ব্রুস লাই।



উক্ত বৈঠকটি ছাড়াও পরবর্তীতে ত্রিনিদাদ ও টোবাগোর পররাষ্ট্র ও ক্যারিকম বিষয়ক মন্ত্রী অ্যামেরি ব্রাউনের সঙ্গেও সাক্ষাৎ করেছেন ভারতীয় প্রতিনিধি দল। শীঘ্রই দু দেশের মধ্যকার পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠক আয়োজনের বিষয়েও আলোচনা করেন তাঁরা।



আলোচনাটি বন্ধুত্বপূর্ণ ও সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশে অনুষ্ঠিত হয়েছিলো বলে জানিয়েছে ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।