গত ১৫ আগস্ট তালেবান কর্তৃক আফগানিস্তান দখলের পর ভূখন্ডটিতে এটিই প্রথম কোনো বড় সন্ত্রাসী হামলা

আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে হামিদ কারজাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ভয়াবহ বোমা হামলার ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়েছে ভারত। গত ২৬ আগস্ট, বৃহস্পতিবার সংঘটিত হওয়া প্রাণঘাতী ওই বিস্ফোরণে ১৩ মার্কিন সেনাসহ অন্তত ৬০ জন আফগান নাগরিক নিহত হয়েছেন বলে বিভিন্ন সূত্র দাবি করছে। আহত হয়েছেন ১৪০ জনের বেশি। হতাহত ব্যক্তিদের মধ্যে বেসামরিক আফগান নারী ও শিশু রয়েছে।

হামলার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়ে এক বিজ্ঞপ্তিতে ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষে বলা হয়, “আজকের এই হামলা বিশ্বকে সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধভাবে দাঁড়ানোর প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করাবে। পাশাপাশি তাঁদের বিরুদ্ধেও দাঁড়াতে হবে, যারা সন্ত্রাসবাদে মদদ দেয়। আমরা এই হামলার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি এবং নিহতদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানাচ্ছি। যারা আহত অবস্থায় রয়েছেন, আমরা তাঁদের পাশে রয়েছি।”

গত ১৫ আগস্ট তালেবান কর্তৃক আফগানিস্তান দখলের পর ভূখন্ডটিতে এটিই প্রথম কোনো বড় সন্ত্রাসী হামলা। হামলার পরে ইসলামিক স্টেট খোরাসানের (আইএস-কে) পক্ষ থেকে এ হামলার দায় স্বীকার করা হয়। আইএস বলেছে, মার্কিন সেনাসহ তাদের সহযোগী ও অনুবাদক আফগানদের লক্ষ্য করে আইএসের একটি আত্মঘাতী বোমা হামলাকারী দল এ হামলা পরিচালনা করেছে। সামনের দিনগুলোতে এরকম আরও হামলার আশঙ্কা করছেন সামরিক বিশেষজ্ঞ মহল।

এদিকে, কাবুলে জোড়া বোমা হামলাকারীদের ধরার অঙ্গীকার করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। হামলার কয়েক ঘণ্টার মাথায় গতকাল হোয়াইট হাউস থেকে বক্তব্য দেন বাইডেন। বক্তব্য দিতে গিয়ে তিনি আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েন।

বাইডেন বলেন, “যারা এই হামলা চালিয়েছে, একই সঙ্গে যারা আমেরিকার ক্ষতি করতে চায়, তারা এটা জেনে রাখুক যে আমরা ক্ষমা করব না। আমরা ভুলব না। আমরা তোমাদের ধরব। এই হামলার জন্য দায়ীদের মূল্য চোকাতে হবে।”

হামলায় নিহত মার্কিন সেনাদের প্রশংসা করেন বাইডেন। তাঁদের ‘হিরো’ হিসেবে অভিহিত করেন তিনি। তিনি বলেন, “আমরা সন্ত্রাসীদের কারণে নিবৃত্ত হব না।” হামলাকারীদের সমুচিত জবাব দেওয়ার জন্য মার্কিন প্রতিরক্ষা দপ্তর পেন্টাগনকে ইতোমধ্যে প্রতি–আক্রমণের পরিকল্পনা তৈরির নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে বলে জানান বাইডেন।

প্রসঙ্গত, যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশটি গত কয়েক দশকের মধ্যে বর্তমানে সবচেয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছে। এর সূত্র ধরে দেশটি থেকে নিজেদের নাগরিকদের ফিরিয়ে নিচ্ছে পৃথিবীর সকল রাষ্ট্র। ভারতও ইতোমধ্যে নিজেদের নাগরিক সহ প্রায় ৮০০ নাগরিককে কাবুল থেকে ফিরিয়ে এনেছে।