ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উর্ধ্বতন এই কর্মকর্তা বলেন, শীঘ্রই সংসদে একটি নতুন অভিবাসন বিল উত্থাপন করা হবে।

বর্তমান বিশ্ব বাস্তবতায় একটি রাষ্ট্রের আভ্যন্তরীণ অগ্রাধিকার এবং বাহ্যিক কূটনীতির দৃষ্টিভঙ্গির সমন্বয় অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলে মন্তব্য করেছেন ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব (সিপিভি ও ওআইএ) সঞ্জয় ভট্টাচার্য। ১৪ সেপ্টেম্বর, মঙ্গলবার, এফআইসিসিআই লিডস -২০২১ এর ভবিষ্যত অংশীদারিত্ব বিষয়ক সেমিনারে বক্তব্য রাখতে গিয়ে এ কথা বলেন তিনি।



পরবর্তীতে অনুষ্ঠান এ অংশগ্রহণ এবং নিজ বক্তব্য সম্পর্কে একটি টুইট করেন সঞ্জয়। সেখানে ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উর্ধ্বতন এই কর্মকর্তা বলেন, শীঘ্রই সংসদে একটি নতুন অভিবাসন বিল উত্থাপন করা হবে।



নতুন অভিবাসন বিলে সকল শ্রেণী, পেশার মানুষের ইচ্ছে-অনিচ্ছের প্রতিফলন ঘটবে বলে জানান তিনি। এসময় সঞ্জয় বলেন, “নিঃসন্দেহে ভবিষ্যতে মাইগ্রেশন সংক্রান্ত ইকোসিস্টেম গতিশীল হবে। তার সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে গেলে আমাদের অবশ্যই চাহিদা অনুযায়ী পদক্ষেপ নিতে হবে, প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়াতে হবে, উপসাগরীয় অঞ্চল সহ যেসব এলাকায় আমাদের গন্তব্য তুলনামূলক জনপ্রিয়, সেসব এলাকার সঙ্গে যোগাযোগ বৃদ্ধিতে পদক্ষেপ নিতে হবে, তরুণদের দক্ষতা বিকাশ ঘটাতে হবে, বয়স্কদের দক্ষতার ঘাটতি পূরণের ব্যবস্থা করতে হবে, সর্বোপরি, নিরাপদ, আইনসম্মত এবং স্মার্ট একটি মাইগ্রেশন ব্যবস্থার প্রণয়ন করতে হবে।”



বিশ্বজুড়ে তথ্য প্রযুক্তি বিপ্লব হয়েছে উল্লেখ করে সঞ্জয় বলেন, “তথ্য ও প্রযুক্তি শিল্পের এ যুগে আমরা অর্থনৈতিক ব্যবস্থাপনাতেও প্রযুক্তি এবং উদ্ভাবনের ব্যাপক চাহিদা দেখতে পাচ্ছি। করোনা মহামারী এই চাহিদা আরও বাড়িয়ে দিয়েছে কয়েক গুণে। বিশ্ব আরও গতিশীল হয়ে উঠেছে। তাই নতুনত্বের সঙ্গে আমাদেরকে সমন্বয় করতে হবে।”



এসময় উপসাগরীয় অঞ্চল সম্পর্কে বলতে গিয়ে পররাষ্ট্র দপ্তরের এই সচিব বলেন, “এই অঞ্চল জুড়ে আমাদের বেশিরভাগ শ্রমিক অবস্থান করছেন। সেখানকার ভূ-প্রকৃতি সহ সবকিছুর সঙ্গে তাঁরা মানিয়ে নিয়েছেন। বর্তমানে সেখানেও দক্ষতার উপর ব্যাপক জোর দেয়া হচ্ছে। তাই আমরা সেভাবেই আমাদের কাঠামো গড়বো।”



একই সঙ্গে শ্রমবাজারের বিকাশ হচ্ছে জানিয়ে সচিব বলেন, “আমাদের সামনে নতুন কিছু গন্তব্য সৃষ্টি হচ্ছে। পৃথিবীর বেশ কিছু রাষ্ট্রের সঙ্গে আমাদের নতুনভাবে পথচলা শুরু হয়েছে। সম্মানের সঙ্গে আমাদের নাগরিকদের অবস্থান নিশ্চিত করতে আমরা ব্যাপক ভূমিকা নিয়েছি।”



আলোচনার এক পর্যায়ে, সরকারী খাতের পাশাপাশি বেসরকারী খাতেও দক্ষতা বৃদ্ধি মূলক কার্যক্রম জোরদারের আহবান জানান তিনি। বেসরকারী খাতের মালিক এবং পরিচালকদেরকে এক্ষেত্রে এগিয়ে আসার আহবান জানান তিনি।



বিশ্ব জুড়ে কাজ করে চলা অভিবাসী ভারতীয়দের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, বিশ্বজুড়ে আমাদের নাগরিকদের ব্যাপক সুনাম রয়েছে। পৃথিবীর প্রায় অনেক রাষ্ট্রের অর্থনীতি এবং জনমিতিতে আমাদের ভারতীয়রা ব্যাপক ভূমিকা রেখে চলেছে।”



এসময় যুক্তরাষ্ট্র সরকার কর্তৃক ভারতীয় পেশাজীবীদের সম্মানিত করার উদাহরণ টেনে তিনি বলেন, “ইউরোপীয় দেশ গুলোতেও আমরা একই ভূমিকা রাখতে পারি এবং তারচেয়েও বেশি কার্যকর পদক্ষেপ নিয়ে সুনাম বয়ে আনতে পারি।”



আলোচনার এক পর্যায়ে, ফ্রান্স, জার্মানি, ডেনমার্ক, যুক্তরাজ্য, বেনেলক্স, পর্তুগাল এবং অন্যান্য অনেক রাষ্ট্রের সঙ্গে অভিবাসন খাতে নতুন করে ভারতের চুক্তি হতে যাচ্ছে বলে নিশ্চিত করেন পররাষ্ট্র দপ্তরের অভিজ্ঞ এই কূটনীতিক।