স্থানীয় পর্যায়ে ভারতের অভ্যন্তরে নাগরিকদের দক্ষতা বৃদ্ধি ও আত্মনির্ভর ভারত গড়ার উপর জোর দেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মীনাক্ষী লেখি।

বাংলাদেশে রেলওয়ে সেতু ও সঙ্কেত ব্যবস্থা নির্মাণ এবং শ্রীলঙ্কায় যুদ্ধ পরবর্তী রেলপথ পুনর্গঠন সহ বিশ্বের পাঁচটি রাষ্ট্রে প্রায় সাত বিলিয়ন ডলার ব্যয়ে ৯৮ টি সংযোগ প্রকল্প নির্মাণের কাজ হাতে নিয়েছে ভারত। এমনটি জানিয়েছেন ভারতের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মীনাক্ষী লেখি। এর মধ্যে প্রায় ৪৪ টি প্রকল্প ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে বলেও জানান তিনি।

গত ১৬ সেপ্টেম্বর, বৃহস্পতিবার, স্পেন-ইন্ডিয়া কাউন্সিল ফাউন্ডেশনে বক্তৃতাকালে লেখি বলেন, এই প্রকল্প গুলো ভারতের নিকটবর্তী অঞ্চলে শক্তিশালী মাল্টিমোডাল সংযোগের প্রয়োজনীয়তাকে ব্যখ্যা করে।

যৌথ ইভেন্টটিতে ভারত এবং স্পেনের গুরুত্বপূর্ণ স্টেকহোল্ডারদের সঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন আলোচনায় যোগ দেন লেখি। এসময়, স্থানীয় পর্যায়ে ভারতের অভ্যন্তরে নাগরিকদের দক্ষতা বৃদ্ধি ও আত্মনির্ভর ভারত গড়ার উপর জোর দেন তিনি।

এসময় অবকাঠামো, জলবিদ্যুৎ, বিদ্যুৎ সঞ্চালন, কৃষি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য এবং শিল্প খাতে ভারত-স্পেন এর যৌথ অংশীদারিত্বের বিষয়েও কথা বলেন তিনি। তাছাড়া, আফগানিস্তানের হেরাত প্রদেশে আফগান-ভারত বন্ধুত্ব বাঁধ, কাবুলের আফগান সংসদ ভবন, মরিশাসের একটি ইএনটি হাসপাতাল, মরিশাসের মেট্রো এক্সপ্রেস প্রকল্প, শ্রীলঙ্কার জাফনা সাংস্কৃতিক কেন্দ্র, সুপ্রিম কোর্ট ভবন নির্মাণে ভারতীয় ভূমিকার উদাহরণও দেন তিনি।

এসবের পাশাপাশি গাম্বিয়ার পার্লামেন্ট ভবন, ঘানার প্রেসিডেন্ট ভবন, সুদানের কোস্টি পাওয়ার প্রজেক্ট এবং দেশের এক-তৃতীয়াংশ বিদ্যুৎ সরবরাহকারী রুয়ান্ডার নয়াবোরোঙ্গো পাওয়ার প্রজেক্টের উদাহরণ টেনে আনেন লেখি।

'ভারতের উন্নয়ন সহযোগিতা মানবকেন্দ্রিক'

ভারতীয় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মীনাক্ষী লেখি বলেন, ভারতের উন্নয়ন সহযোগিতা মূলত মানবকেন্দ্রিক। এটি আমাদের জাতিগত সম্মান, বৈচিত্র্য, ভবিষ্যত এবং টেকসই উন্নয়নকে ফোকাস করে।

এছাড়াও, বিভিন্ন রাষ্ট্রে সহযোগিতা ও উন্নয়ন কার্যক্রম পরিচালনার ক্ষেত্রে ভারত ক্রমাগত প্রযুক্তিগত উৎকর্ষ সাধনের পাশাপাশি নিয়মিত অনুদান সহায়তা বৃদ্ধি করছে এবং লাইন অব ক্রেডিট বাড়াচ্ছে বলে জানান তিনি।

বর্তমানে ভারতের তত্ত্বাবধানে ৬৪ টি দেশে সাড়ে একত্রিশ বিলিয়ন ডলার সমমূল্যের প্রায় ৩১১ টি প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে বলেও জানান লেখি। এছাড়াও প্রায় ৬৫৭ টি প্রকল্প বাস্তবায়িত হয়েছে বলে জানান তিনি।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি পর্তুগালে দক্ষ শ্রমিক ও জনবল রপ্তানীকল্পে দেশটির সঙ্গে একটি চুক্তি স্বাক্ষর করেছে ভারত। চুক্তিটিকে ইতোমধ্যে ‘ঐতিহাসিক’ এবং ‘মাইলফলক’ হিসেবে আখ্যায়িত করছেন কূটনৈতিক বিশ্লেষকেরা। ভারতীয় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মীনাক্ষী লেখির তিনদিনের পর্তুগাল সফরকালে চুক্তিটি স্বাক্ষর করা হলো। এর আগে গত ১২ সেপ্টেম্বর তিনদিনের রাষ্ট্রীয় সফরে পর্তুগাল যান তিনি।

প্রসঙ্গত, করোনা মহামারীতে বিশ্বব্যাপী বিভিন্ন রাষ্ট্রে চাকুরি হারায় ভারতীয় শ্রমিকগণ। এমন পরিস্থিতিতে পর্তুগালের সঙ্গে হওয়া নতুন চুক্তিটি ব্যাপক ভাবে আশার আলো জোগাবে বলেই ধারণা করা হচ্ছে।