করোনা মহামারী ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়ার পর প্রথমবারের মতো উপমহাদেশের বাইরে রাষ্ট্রীয় সফরে যাচ্ছেন মোদী

আগামীকাল যুক্তরাষ্ট্রের উদ্দেশ্যে রওনা দিবেন ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। চারদিন ব্যাপী (২২-২৫ সেপ্টেম্বর) অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া এই সফরে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে বক্তব্য রাখার পাশাপাশি কোয়াড সম্মেলনে অংশগ্রহণ এবং মার্কিন রাষ্ট্রপতি জো বাইডেনের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক করবেন তিনি। এসময় দেশটিতে অবস্থানরত ব্যবসায়ী সম্প্রদায়ের সঙ্গেও বৈঠক করতে পারেন তিনি।

২১ সেপ্টেম্বর, মঙ্গলবার, এক বিশেষ প্রেস ব্রিফিং এ পররাষ্ট্র সচিব শ্রী হর্ষবর্ধন শ্রিংলা বলেন, “প্রধানমন্ত্রীর এবারের যুক্তরাষ্ট্র সফরের অন্যতম প্রধান আকর্ষণ হোয়াইট হাউজে মার্কিন রাষ্ট্রপতি জো বাইডেনের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক। সেখানে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক পর্যালোচনা করবেন তাঁরা। পাশাপাশি কৌশলগত অংশীদারিত্ব বৃদ্ধিতে আরও কার্যকর পদক্ষেপ নেয়ার নানাবিধ উপায় সম্পর্কে মতবিনিময় করবেন উভয় নেতৃত্ব।”

বাইডেন ও মোদীর আলাপকালে দু দেশের মধ্যকার বাণিজ্য, বিনিয়োগ, প্রতিরক্ষা, নিরাপত্তা, গবেষণা, জ্বালানী, শিল্প, উন্নয়ন ও উদ্ভাবন খাতে সহযোগিতার বিষয়ে আলোচনাহবে বলে জানান শ্রিংলা।

জানা গিয়েছে, ভারতীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর, জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল এবং পররাষ্ট্র ও প্রতিরক্ষা দপ্তরের অন্যান্য উর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণের সমন্বয়ে গঠিত একটি প্রতিনিধি দল প্রধানমন্ত্রী মোদীর সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রে সফরসঙ্গী হবেন।

শ্রিংলা জানান, এবারের সাধারণ পরিষদ অধিবেশনে মৌলবাদ, চরমপন্থা, সীমান্তে সন্ত্রাসবাদ বিরোধী এবং বিশ্বব্যাপী সন্ত্রাসী নেটওয়ার্ক ধ্বংস করার প্রয়োজনীয়তা নিয়ে বক্তব্য দিবেন প্রধানমন্ত্রী মোদী।

তাছাড়া, ২৩ সেপ্টেম্বর মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিসের সঙ্গেও বৈঠক হতে পারে মোদীর। এটি দুই নেতার মধ্যকার প্রথম আনুষ্ঠানিক বৈঠক হতে চলেছে। দেশটির শীর্ষ ব্যবসায়ী নেতাদের সঙ্গে একই দিন মতবিনিময় সভায় অংশ নিতে পারেন প্রধানমন্ত্রী মোদী।

এরপর ২৪ সেপ্টেম্বর হোয়াইট হাউসে কোয়াড জোটের বৈঠকে মিলিত হবেন মোদী। সেখানে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন, অজি প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন এবং জাপানের প্রধানমন্ত্রী ইয়োশিহিদের সঙ্গে কোয়াড শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দিবেন তিনি।

সর্বশেষ গত ১২ মার্চ কোয়াড ভূক্ত এই শীর্ষ নেতাদের ভার্চুয়াল বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছিলো। এবারের আলোচনায় সাম্প্রতিক বৈশ্বিক রাজনৈতিক পরিস্থিতি এবং বহুপাক্ষিক ব্যবস্থার উপর জোর দেয়া হবে। পাশাপাশি মহামারী উত্তরণে এবং শান্তিপূর্ণ ইন্দো-প্যাসিফিক গঠনের বিষয়েও জোরদার আলোচনা করা হবে বৈঠকে।

তাছাড়া, নিজেদের মধ্যকার উদীয়মান প্রযুক্তি ভাগ করে নেয়া, সংযোগ ও অবকাঠামো উন্নয়ন, সাইবার নিরাপত্তা, সমুদ্র নিরাপত্তা, মানবিক সহায়তা, দুর্যোগ ত্রাণ, জলবায়ু পরিবর্তন এবং শিক্ষার বিকাশের মতো গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু গুলো আলোচনায় স্থান পাবে বলে জানা গিয়েছে।

কোয়াড জোটের বৈঠক শেষে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে যোগ দিতে নিউইয়র্কে রওনা করবেন মোদী। সেখানে ২৫ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘের ৭৬ তম অধিবেশনে ভাষণ দেবেন তিনি। করোনা পরবর্তী বিশ্ব গঠনে করণীয় সম্পর্কে আলোচনা করবেন তিনি।

এরপর অজি প্রধানমন্ত্রী এবং জাপানের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলাদাভাবে বৈঠকে মিলিত হতে পারেন তিনি। সর্বোপরি, ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর এবারের সফর ভরপুর ব্যস্ততার সম্মিলন হবে বলে জানান শ্রিংলা।