ব্যাপক অর্থনৈতিক অংশীদারিত্ব চুক্তি দু দেশের মধ্যকার বাণিজ্য ও কূটনৈতিক সম্পর্কে নতুন মাত্রা যোগ করবে বলে আশা করছে সংশ্লিষ্টরা।

দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য ও বিনিয়োগ খাতে সম্পর্ক জোরদারে আলোচনার টেবিলে বসেছে ভারত এবং সংযুক্ত আরব আমিরাত। সম্ভাব্য সিইপিএ আলোচনার প্রথম রাউন্ডে আজ, বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, নয়াদিল্লীতে বৈঠক করছে দেশ দুটোর প্রতিনিধিগণ।



বৈঠকে যোগদান করতে দুদিনের সফরে ভারতে এসেছেন সংযুক্ত আরব আমিরাতের বৈদেশিক বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী থানি বিন আহমেদ আল জেইউদি এবং সংশ্লিষ্ট দপ্তরের অন্যান্য কর্মকর্তাগণ। অন্যদিকে, আলোচনায় ভারতীয় প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব করছেন কেন্দ্রীয় বাণিজ্য ও শিল্প মন্ত্রী পীযূষ গয়াল। বৈঠকটি আগামীকাল (২৪ সেপ্টেম্বর) শেষ হবার কথা রয়েছে।



বৈঠকের মূল উদ্দেশ্য আগামী বছরের মার্চ মাস নাগাদ দু দেশের মধ্যে একটি ব্যাপক অর্থনৈতিক অংশীদারিত্ব চুক্তি (সিইপিএ) স্বাক্ষর করা। এর মাধ্যমে উভয় পক্ষের মধ্যে বিদ্যমান বাণিজ্য সম্পর্ক পাঁচ বছরের মধ্যে ১০০ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে উন্নীত হবে। এছাড়াও, অন্যান্য পরিষেবা খাতে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক প্রায় ১৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে উন্নীত হবে।



এর আগে গত ২০১৭ সালে একটি ব্যাপক কৌশলগত অংশীদারিত্ব চুক্তি স্বাক্ষর করেছি ভারত ও সংযুক্ত আরব আমিরাত। তারই আদলে নতুন এই লাভজনক চুক্তিটি করতে আগ্রহী দু পক্ষ। বৈঠক উপলক্ষ্যে একটি যৌথ বিবৃতি দিয়েছে দেশ দুটো।



সেখানে উভয় মন্ত্রীর বরাত দিয়ে বলা হয়েছে, বাণিজ্য চুক্তি বাস্তবায়নে সম্ভাব্য সকল আলোচনা ২০২১ সালের ডিসেম্বর নাগাদ সমাপ্ত করা হবে এবং ২০২২ সালের মার্চ মাস নাগাদ স্বাক্ষরিত হবে সিইপিএ।



চুক্তিটির ফলে দু দেশের মধ্যকার কূটনৈতিক ও বাণিজ্যিক সম্পর্ক যেমন বৃদ্ধি পাবে, তেমনই নতুন কর্মসংস্থানেরও সৃষ্টি হবে। উভয় রাষ্ট্রের নাগরিকেরই জীবন যাত্রার মান বাড়বে। লাভবান হবে দু পক্ষই।



প্রসঙ্গত, সংযুক্ত আরব আমিরাত বর্তমানে ভারতের তৃতীয় বৃহত্তম বাণিজ্যিক অংশীদার। গত ২০১৯-২০ অর্থবছরেও দু রাষ্ট্রের মধ্যে প্রায় ৫৯ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের বাণিজ্য হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের পর সংযুক্ত আরব আমিরাতই ভারতের রপ্তানীর দিক দিয়ে দ্বিতীয় বৃহত্তম গন্তব্য। গত ২০১৯-২০ অর্থবছরে প্রায় ২৯ বিলিয়ন মার্কিন ডলার সমপরিমাণ পণ্য দেশটিতে রপ্তানী করেছে দিল্লী।



একইভাবে ভারতও সংযুক্ত আরব আমিরাতের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রপ্তানী গন্তব্য। শুধুমাত্র ২০১৯ সালে ভারতে প্রায় ৪১ বিলিয়ন ডলার সমপরিমাণ পণ্য রপ্তানী করে দেশটি। এছাড়াও, সংযুক্ত আরব আমিরাত ভারতে অষ্টম বৃহত্তম বিনিয়োগকারী রাষ্ট্র। এই করোনাকালেও বিগত এক বছরে প্রায় ১১ বিলিয়ন ডলার ভারতে বিনিয়োগ করেছে দেশটি। তাছাড়া, দেশটিতে ভারতীয় কোম্পানী গুলোও প্রায় ৮৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার সমপরিমাণ অর্থ বিনিয়োগ করে রেখেছে।



সংযুক্ত আরব আমিরাতে মূলত পেট্রোলিয়াম পণ্য, মূল্যবান ধাতু, পাথর, রত্ন, গহনা, খনিজ পদার্থ, খাদ্যশস্য, যেমন: চিনি, ফল ও সবজি, চা, মাংস এবং সামুদ্রিক খাবার, বস্ত্র, প্রকৌশল ও যন্ত্রপাতি পণ্য এবং রাসায়নিক দ্রব্যাদি রপ্তানী করে থাকে ভারত।