ভারতীয় নারী যোদ্ধাদের সাহস, বীরত্ব এবং সমাজ সেবার নিদর্শন বিশ্বজুড়ে সকল নারীর জন্য অনুকরণীয়।

রাজনীতি এবং যুদ্ধক্ষেত্র, উভয় অঙ্গনেই ভারতীয় নারীদের গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকা ও ইতিহাস রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব (পশ্চিম) রীনাত সান্ধু। ১৪ অক্টোবর, বৃহস্পতিবার, সাংহাই কো-অপারেশন অর্গানাইজেশন (এসসিও) -তে ‘সশস্ত্র বাহিনীতে নারীর ভূমিকা’ -শীর্ষক আলোচনায় এসব কথা বলেন তিনি।

সান্ধু বলেন, “ভারতীয় নারী সামরিক কর্মকর্তাগণ জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশন সহ বিশ্বব্যাপী নিজেদের একটি বিশেষ স্থান তৈরী করেছেন। নিজেদের জন্য আলাদা সমীহের জায়গা তৈরী করেছেন। শান্তিরক্ষা মিশনের জন্য গঠিত সর্বপ্রথম নারী পুলিশ ইউনিটও ভারতীয় নারী সামরিক কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে গঠিত। ২০০৭ সালে লাইবেরিয়াতে ইতিহাস গড়ে ভারতীয় নারী সৈন্যগণ।”

ভারতীয় পররাষ্ট্র দপ্তরের এই কর্মকর্তা আরও বলেন, “ভারতীয় সেনাবাহিনীর নারী সদস্যগণ নিজেদের নিষ্ঠা, পেশাদারিত্ব এবং অনুকরণীয় ভূমিকার মাধ্যমে এক দৃশ্যমান রোল মডেলে পরিণত হয়েছে। ভারতীয় নারী যোদ্ধাদের সাহস, বীরত্ব এবং সমাজ সেবার নিদর্শন বিশ্বজুড়ে সকল নারীর জন্য অনুকরণীয়।”

এসময়, জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনের অন্যান্য অঞ্চলে ভারতীয় নারী সেনা কর্মকর্তাদের বিশেষ ভূমিকা এবং অবদানের কথা তুলে ধরেন তিনি। পাশাপাশি ভারতীয় নারী সৈন্য দল কর্তৃক অর্জিত বিশেষ সম্মাননা ও পদকের বিষয়েও আলোচনা করেন সান্ধু। তাছাড়া, ভারতীয় নারী সেনাদের সমন্বয়ে গঠিত মেডিকেল টিমেরও বিশেষ প্রশংসা করেন তিনি।

দক্ষিণ সুদান, লাইবেরিয়া, কঙ্গো প্রজাতন্ত্রের মতো আফ্রিকান রাষ্ট্রসমূহে শান্তি প্রতিষ্ঠায় ভারতীয় নারী সেনাদের গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকার কথা স্মরণ করেন সান্ধু।