জি-২০ শীর্ষ বৈঠক ও কোপ-২৬ সম্মেলনে যোগ দিতে ইতালি ও ইংল্যান্ড যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

জি-২০ গ্রুপের শীর্ষ নেতৃত্বের বৈঠক এবং কোপ-২৬ শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দিতে ইতালী ও ইংল্যান্ড সফরের উদ্দেশ্যে দেশ ত্যাগের প্রাক্বালে জাতির উদ্দেশ্যে বক্তব্য দিয়েছেন ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ২৮ অক্টোবর, বৃহস্পতিবার, নিজ বক্তব্যে মোদী জানান, “বৈশ্বিক অর্থনীতি এবং স্বাস্থ্য পুনরুদ্ধার, টেকসই উন্নয়ন এবং জলবায়ু পরিবর্তন ইস্যুতে আলোচনাই হবে এবারের ১৬ তম জি-২০ শীর্ষ সম্মেলনের মূল এজেন্ডা।”

উল্লেখ্য, আগামী ২৯ অক্টোবর থেকে ৩১ অক্টোবর অবধি সময়কালে ইতালী সফর করবেন মোদী। মহামারী পরবর্তী সময়ে প্রথমবারের মতো সশরীরে জি-২০ সম্মেলনের কোনো বৈঠকে অংশ নিতে চলেছেন মোদী। ইতালীর রোমে এবারের শীর্ষ বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হবে। মূলত দেশটির প্রধানমন্ত্রী মারিও দ্রাঘির আমন্ত্রণে ইতালী সফরে যাচ্ছেন মোদী।

পরবর্তীতে ০২ নভেম্বর অবধি যুক্তরাজ্যের গ্লাসগোতে সফর করবেন মোদী। সেখানে কোপ-২৬ শীর্ষ সম্মেলনে যোগদান করবেন তিনি। কোপ-২৬ সম্মেলনের সভাপতি যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের আমন্ত্রণে দেশটির সফরে যাবেন ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী।

এবারের জি-২০ সম্মেলনে ইতালির সভাপতিত্বে একাধিক বিষয়ে আলোচনা হতে পারে। এই তালিকায় রয়েছে-অতিমারী থেকে সেরে ওঠা, বিশ্ব স্বাস্থ্য পরিকাঠামো শক্তিশালী করা, জলবায়ু পরিবর্তন, অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার সহ বিভিন্ন বিষয়। এর পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী মোদী একাধিক দ্বিপাক্ষিক আলোচনাতে অংশগ্রহণ করতে পারেন। কথা বলতে পারেন ইতালির প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গেও।

দেশ ত্যাগ পূর্ব ভাষণে মোদী বলেন, “আমাদের বর্তমান বৈশ্বিক পরিস্থিতির সার্বিক মূল্যায়ন করতে, অর্থনীতির স্থিতিস্থাপকতা ফিরিরে আনতে এবং মহামারী থেকে উত্তরণের পথ খুঁজতে এবারের জি-২০ শীর্ষ সম্মেলনে পথ দেখাবে।”

জানা গিয়েছে, সম্মেলনে যোগ দেওয়ার আগে আগামী শুক্রবার ভ্যাটিকানে ক্যাথলিক চার্চের প্রধান পোপ ফ্রান্সিসের সঙ্গে দেখা করতে পারেন মোদী। সরকারি তরফে যদিও এই বিষয়ে কোনও মন্তব্য করা হচ্ছে না। পাশাপাশি ইতালীর সেক্রেটারি অফ স্টেট কার্ডিনাল পিয়েত্রো পারোলিনের সঙ্গে দেখা করবেন মোদী।

এরপর কোপ-২৬ সম্মেলনে অংশ নিতে যুক্তরাজ্য সফর করবেন মোদী। এবারের সম্মেলনে ১২০টিরও বেশি দেশের রাষ্ট্র/সরকার প্রধানরা অংশ নেবেন। ৩১ অক্টোবর থেকে ১২ নভেম্বর পর্যন্ত এই সম্মেলন চলবে। সম্মেলন চলাকালে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে মিলিত হতে পারেন মোদী।

জাতির উদ্দেশ্যে দেয়া নিজের ভাষণে এবারের বিদেশ যাত্রার সার্বিক দিক নিয়ে বক্তব্য রাখেন মোদী। এসময় নবায়ন যোগ্য শক্তির ব্যবহার বৃদ্ধি, আন্তর্জাতিক সৌর জোট, কার্বন নিঃসরণ শুন্যের কোটায় নামিয়ে আনা, জলবায়ু পরিবর্তন সহ নানা ইস্যুতে আলোচনা করেন তিনি।