চলতি বছর নিরাপত্তা পরিষদে সফলতার সঙ্গে দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি অত্যন্ত নিপুণভাবে আগস্ট মাসে সভাপতির দায়িত্বও পালন করে ভারত।

নিরাপত্তা পরিষদে ভারতের কর্মকান্ডই প্রমাণ করে, ভারত সংস্থাটির স্থায়ী সদস্যপদ প্রাপ্তির দাবিদার। এমনটিই দাবি করলেন জাতিসংঘে নিযুক্ত ভারতের স্থায়ী প্রতিনিধি টিএস তিরুমূর্তি। গত ২৯ ডিসেম্বর, বুধবার, টুইটারে পোস্ট করা এক ভিডিও বার্তায় তিনি বলেন, “আমাদের পারফরম্যান্সই ইঙ্গিত দেয় যে নিরাপত্তা পরিষদে স্থায়ী সদস্যপদ পাওয়া উচিত ভারতের।”

বর্তমান বিশ্ব রাজনীতিতে ভারতের অবস্থান ও প্রাসঙ্গিকতা এবং শান্তিরক্ষায় অবদান নিয়ে কথা বলতে গিয়ে তিরুমূর্তি বলেন, “চলতি বছর নিরাপত্তা পরিষদে সফলতার সঙ্গে দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি অত্যন্ত নিপুণভাবে আগস্ট মাসে সভাপতির দায়িত্বও পালন করে ভারত। প্রথমবারের মতো নিরাপত্তা পরিষদে সভাপতিত্ব করেছেন ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী। তাছাড়া সাধারণ অধিবেশনের সময় প্রধানমন্ত্রীর সফর এবং ভাষণ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ছিলো।”

শান্তিরক্ষা কার্যক্রমের কথা বলতে গিয়ে তিরুমূর্তি বলেন, “জাতিসংঘে আমরাই প্রথমবারের মতো রক্ষকদের সুরক্ষা বিষয়ক রেজুলেশন নিয়ে এসেছি। শান্তিরক্ষীদের বিরুদ্ধে অপরাধের জন্য জবাবদিহিতার আহবান জানিয়েছি আমরা। তাছাড়া, সারা বিশ্বের শান্তিরক্ষী মিশন গুলোতে প্রায় দু লক্ষ ভ্যাকসিন ডোজ সরবরাহ করেছি আমরা বিনামূল্যে।”

অভিজ্ঞ এই কূটনীতিক বলেন, “ভারত যখন নিরাপত্তা পরিষদের সভাপতিত্ব গ্রহণ করলো, তখন কাকতালীয়ভাবে আফগানিস্তানে তালেবান ক্ষমতা দখল করে। তখন বলিষ্ঠ ভূমিকা পালনের প্রয়োজনীয়তা দেখা দিয়েছিলো। আমরা সে কাজটিই সঠিকভাবে করেছি।”

উল্লেখ্য, গত আগস্টে ভারতের সভাপতিত্বে নিরাপত্তা পরিষদে গৃহীত হয় জাতিসংঘের ২৫৯৩ নং রেজুলেশন। এর অর্থ, কোনো সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের জন্যেই আফগান ভূখন্ড ব্যবহার করা যাবেনা। এসবের পাশাপাশি সন্ত্রাসবাদ মোকাবেলা, সমুদ্র নিরাপত্তা ইস্যু, জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুদ্ধে লড়াই এবং আফ্রিকা মহাদেশেও গণতন্ত্রের উত্তরণের জন্য ভারত কাজ করে। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক