জাতিসংঘ, জি-২০ কিংবা বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থা; সর্বক্ষেত্রেই ঘনিষ্ঠ দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক রয়েছে ভারত এবং আর্জেন্টিনার মধ্যে

আর্জেন্টিনার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সান্তিয়াগো আন্দ্রেস ক্যাফিয়েরোর সাথে বৈঠক করেছেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর। গত ১৪ জানুয়ারী, শুক্রবার, ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে কথোপকথনটি অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনাকালে ভারত ও আর্জেন্টিনার মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের পর্যালোচনা করেছেন উভয় নেতা।

পরবর্তীতে বৈঠকের বিষয়ে এক টুইটবার্তায় জানিয়েছেন জয়শঙ্কর নিজেই। সেখানে তিনি লিখেছেন, “আর্জেন্টিনার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সান্তিয়াগো আন্দ্রেস ক্যাফিয়েরোর সাথে ভার্চুয়াল আলোচনা করলাম। দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য, করোনা মহামারী প্রতিরোধে সম্ভাব্য সহযোগিতা, ফার্মাসিউটিক্যাল বাণিজ্য, খনি, প্রতিরক্ষা, পারমাণবিক এবং মহাকাশ সংক্রান্ত বিষয়াদিতে মতবিনিময় হয়েছে আমাদের। বহুপাক্ষিক ফোরামগুলোতে আমাদের সমন্বয় দীর্ঘদিনের।”

উল্লেখ্য, জাতিসংঘ, জি-২০ কিংবা বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থা; সর্বক্ষেত্রেই ঘনিষ্ঠ দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক রয়েছে ভারত এবং আর্জেন্টিনার মধ্যে। তাছাড়া, নিয়মিত উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক এবং সফরের মাধ্যমে এই সম্পর্ক দিনকে দিন উষ্ণ হচ্ছে বলে ধারণা বিশ্লেষকদের। এর আগে গত ২৪ নভেম্বর, ২০২১, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব রিভা গাঙ্গুলী দাশের সাথে বৈঠকে বসেছিলেন আর্জেন্টিনার প্রতিনিধিত্ব করছেন উপ পররাষ্ট্রমন্ত্রী পাবলো টেটামন্তি।

এর আগে ২০১৯ সালে কৌশলগত অংশীদারিত্ব বাড়াতে সম্মত হয়েছিলো দু পক্ষ। আলোচনাকালে, উভয় পক্ষই প্রতিরক্ষা, মহাকাশ, পারমাণবিক শক্তি, খনিজ শক্তি (প্রচলিত এবং নবায়নযোগ্য), তেল ও গ্যাস (প্রচলিত পাশাপাশি শেল), স্বাস্থ্য এবং ফার্মা সহ পারস্পরিক স্বার্থের অনেক ক্ষেত্রে চলমান দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতা বিস্তৃত করার জন্য নিজেদের অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করেছে। পাশাপাশি সমসাময়িক বৈশ্বিক ও আঞ্চলিক নানা ইস্যুতেও মতবিনিময় করেছে তাঁরা। একই সঙ্গে, বহুপাক্ষিক ফোরামে এঁকে অন্যকে সমর্থনের বিষয়েও অঙ্গীকার করে তাঁরা।

প্রসঙ্গত, বিগত দশ বছরে ভারত ও আর্জেন্টিনার মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য বেড়েছে দ্বিগুণেরও বেশি। বর্তমানে প্রায় তিন বিলিয়নেরও বেশি অর্থের বাণিজ্য করে থাকে দেশ দুটো। সন্ত্রাসবাদ, জলবায়ু পরিবর্তন, টেকসই উন্নয়ন, জোট নিরপেক্ষ আন্দোলন, নারীর সমস্যা এবং মানবাধিকারের মতো বিষয়গুলোতে ঘনিষ্ঠ হচ্ছে আর্জেন্টিনা ও ভারত। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক