চলমান রুশ-ইউক্রেন যুদ্ধ অবিলম্বে বন্ধ করতে এবং ইউক্রেনে ধ্বংসলীলার অবসান চেয়ে বক্তব্য দিয়েছে ভারত।

ইউক্রেনের বুচা শহরে সাধারণ জনগণকে নির্বিচারে হত্যার ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছে ভারত। একইসঙ্গে বুচা গণহত্যার ঘটনায় স্বাধীন তদন্তের আহ্বানেও সমর্থন জানিয়েছে দেশটি। ০৫ এপ্রিল, মঙ্গলবার, জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকে বুচা গণহত্যা প্রসঙ্গে নিজেদের অবস্থান তুলে ধরেন জাতিসংঘে নিযুক্ত ভারতীয় প্রতিনিধি টিএস তিরুমূর্তি।

উল্লেখ্য, ইউক্রেনে রুশ আগ্রাসন শুরু হওয়ার পর থেকে এই প্রথম রাশিয়ার বিরুদ্ধে অবস্থান নিলো ভারত। এছাড়াও ইউক্রেনে রুশ আগ্রাসন অবিলম্বে বন্ধের আহ্বান জানিয়েছে দেশটি।

বুচা গণহত্যাকে নিন্দনীয় আখ্যা দিয়ে তিরুমূর্তি বলেন, “বুচায় সাধারণ নাগরিককে হত্যার সাম্প্রতিক ঘটনা গভীর ভাবে উদ্বেগজনক। আমরা স্পষ্টভাবেই এই হত্যাকাণ্ডের নিন্দা জানাচ্ছি। একইসঙ্গে স্বাধীন তদন্তের আহ্বানকেও সমর্থন জানাচ্ছি।”

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের ঘোষণার পর থেকে ইউক্রেনে সামরিক অভিযান পরিচালনা করছে রাশিয়ান বাহিনী। কিন্তু এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ, জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ এবং জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিলে রাশিয়ার কর্মকাণ্ডের নিন্দা প্রস্তাবে ভোট দেওয়া থেকে বিরত থেকেছে ভারত।

আন্তর্জাতিক রাজনীতিতে ভারতের জোট নিরপেক্ষ কৌশল অনুসরণ করার দীর্ঘ ইতিহাস রয়েছে। কিয়েভ-মস্কো সংঘাত নিয়েও প্রথম থেকেই নিরপেক্ষ থেকেছে ভারত। যুদ্ধবিদ্ধস্ত ইউক্রেনে ওষুধ ও খাদ্য সাহায্য পাঠালেও জনসমক্ষে রাশিয়ার সমালোচনা থেকে বিরত থেকেছে তারা। তবে রাশিয়া-ইউক্রেন ইস্যুতে এই প্রথম অবস্থান বদলাতে দেখা গেল ভারতকে।

উদ্বেগ প্রকাশ করে তিরুমূর্তি আরও বলেন, “যখন নিরপরাধ মানুষের জীবনের কথা আসে তখন কেবল এবং কেবলমাত্র কূটনীতির মাধ্যমেই শান্তি প্রতিষ্ঠা করা যায়। বিগত কাউন্সিল বৈঠকেও আমরা এ কথা বলেছিলাম। কিন্তু মানবিক পরিণতি খারাপের দিকে গিয়েছে। এমতাবস্থায়, আমরা সংশ্লিষ্ট সকল পক্ষকে সংযম এবং সহনশীলতার পথে আসার অনুরোধ করছি।”

অভিজ্ঞ এই কূটনীতিক বলেন, “দু পক্ষের যুদ্ধের ফলে বিশ্বব্যাপী খাদ্য, শক্তি, তেল সহ নানাবিধ বস্তু ও বিষয়ের দাম বৃদ্ধি পাচ্ছে। এমতাবস্থায়, গঠনমূলক কার্যক্রম আমাদের কাম্য। সেটি অবশ্যই আমাদের সম্মিলিত স্বার্থেও এবং মানবতার স্বার্থেও।”

এসময়, বিশ্বের সকল রাষ্ট্রের অখণ্ডতা ও সার্বভৌমত্বের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনের উপর জোর দেন ভারতীয় কূটনীতিক। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক