বর্তমানে ভারতীয় পণ্য ও পরিষেবা রফতানির প্রশ্নে সেরা ১০টি দেশের মধ্যে চলে এসেছে বাংলাদেশ এবং নেপাল।

বিশ্বজুড়ে ভয়ানক অতিমারির ফলে ভারতের বেহাল অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে প্রধানমন্ত্রী মোদী প্রতিবেশী দেশগুলোকে অগ্রাধিকার দিয়েছেন বলে উল্লেখ করেছেন দেশটির পররাষ্ট্র সচিব শ্রী হর্ষবর্ধন শ্রিংলা। সোমবার, ভারত চেম্বার অফ কমার্সে ‘পোস্ট-কোভিড ইকোনমিক রিকভারি’ নিয়ে আলোচনার সময় অভিজ্ঞ এই কূটনীতিক বলেন, “প্রতিবেশীর সাথে সম্পর্কে ভারতের উত্তম সাফল্য বাংলাদেশ-নেপাল।”

প্রতিবেশীর সাথে সম্পর্কের গুরুত্ব নিয়ে শ্রিংলা বলেন, “বর্তমানে ভারতীয় পণ্য ও পরিষেবা রফতানির প্রশ্নে সেরা ১০টি দেশের মধ্যে চলে এসেছে বাংলাদেশ এবং নেপাল। দু দেশে আমাদের মোট রপ্তানির পরিমাণ ১৬ বিলিয়ন ডলারেরও বেশি। তাই প্রতিবেশীদের সাথে সম্পর্ক আরও জোরালো করতেই হবে।”

তিনি বলেন, “প্রতিবেশীর সাথে সম্পর্ক গভীর ও দৃঢ় করা কেবল রাজনৈতিক বা কৌশলগত ডোমেনে কাজ করার ক্ষেত্রেই নয়, আমাদের প্রতিবেশীদের সাথে অর্থনৈতিক ও নৈতিক সম্পর্ক গভীর করার ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য।”

বাংলাদেশ প্রসঙ্গে শ্রিংলা বলেন, “ভারতের রপ্তানি গন্তব্য হিসেবে বাংলাদেশ বর্তমানে পঞ্চম স্থানে অবস্থান করছে। আমরা তাদের সঙ্গে সামগ্রিক অর্থনৈতিক চুক্তির কথা আলোচনা করছি। বণিকসভার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এই সপ্তাহেই বঙ্গ শিল্প সম্মেলনে যোগ দিতে বাংলাদেশের বাণিজ্যমন্ত্রী ভারতে আসবেন।”

পররাষ্ট্র সচিব শ্রিংলা বলেন, “বাণিজ্যের প্রতিবন্ধকতা হ্রাস এবং পণ্য ও মানুষের নির্বিঘ্ন চলাচলের সুবিধার উপর টেকসই ফোকাস সহ আমরা প্রতিবেশী অঞ্চলে আমাদের কিছু গুরুত্বপূর্ণ অংশীদারদের সাথে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যে উল্লেখযোগ্য উন্নতি দেখতে সক্ষম হয়েছি।”

এ প্রসঙ্গে তিনি যোগ করেন, “আমি এটি উল্লেখ করার কারণ হল, আমাদের প্রতিবেশী দেশগুলোতে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি এবং বাণিজ্য অবকাঠামো এবং আন্তঃসীমান্ত সংযোগ উন্নত করার উপর আমাদের জোর দেওয়ার পাশাপাশি প্রতিবেশী দেশে ভারতীয় শিল্পের জন্য সবচেয়ে বড় অর্থনৈতিক সুযোগ প্রদান করবে।”

এসময়, বাংলাদেশ ও নেপালের সাথে ভারতের বাণিজ্য সম্পর্ক বাড়ানোর ক্ষেত্রে দেশটির চেম্বার অব কমার্সের ভূমিকা নিয়েও কথা বলেন তিনি। শ্রিংলা বলেন, “বাংলাদেশে গত এক দশক ধরে বার্ষিক গড়ে ছয় শতাংশের বেশি প্রবৃদ্ধির হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। বিমানবন্দর, সমুদ্রবন্দর এবং মহাসড়কের আকারে দ্রুত অবকাঠামোগত উন্নয়নও করছে দেশটি। বাংলাদেশের সাথে বাণিজ্যের সম্ভাবনা অনেক বেশি। বাংলাদেশের নিকটতম প্রতিবেশী হিসাবে ভারতীয় ব্যবসায়ী সম্প্রদায়ের বাংলাদেশকে এর পরিবর্তনে অনেক কিছু দেওয়ার আছে।”

তিনি বলেন, “আমি বিশ্বাস করি, বাজারকে আরও ভালোভাবে বোঝার জন্য আমাদের ব্যবসার আরও বেশি সংখ্যক প্রতিনিধিকে বাংলাদেশে প্রতিনিধি অফিস এবং সহযোগী প্রতিষ্ঠান খোলা উচিত। বাংলাদেশও ২০২৬ সালে স্বল্পোন্নত দেশের মর্যাদা থেকে বেরিয়ে আসার পথে রয়েছে। যখন এটি ঘটবে তখন বাংলাদেশের অনেক বাণিজ্য ব্যবস্থার পরিবর্তন হবে, ভারত একটি ব্যাপক অর্থনৈতিক অংশীদারি চুক্তির জন্য বাংলাদেশের সাথে আলোচনা করছে। আমাদেরকে একত্রে কাজ করতে হবে।”

এদিকে, নেপালকে ভারতের ঘনিষ্ঠ প্রতিবেশী এবং অর্থনৈতিক অংশীদার হিসাবে বর্ণনা করে তিনি উল্লেখ করেছেন, “হিমালয় দেশ ভারতের নবম বৃহত্তম রপ্তানি বাজার এবং ভারতীয় বিনিয়োগের একটি গুরুত্বপূর্ণ গন্তব্য। ভারতীয় সংস্থাগুলো নেপালের মোট এফডিআই স্টকের ৩০% এর বেশি, যার মূল্য প্রায় ৬০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। নেপালে ম্যানুফ্যাকচারিং, সার্ভিস, পাওয়ার সেক্টর এবং পর্যটন শিল্পে প্রায় ১৫০ টি ভারতীয় উদ্যোগ কাজ করছে।”

উল্লেখ করে যে নেপালে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে বেশ কয়েকটি সংস্কার করা হয়েছে, যা সেই দেশে ব্যবসা করার সহজ উন্নতি করবে বলে আশা করা হচ্ছে। শ্রিংলা বলেন, “কিছু আসন্ন ক্ষেত্র যা ভারতীয় শিল্পের জন্য আকর্ষণীয় হতে পারে, তার মধ্যে রয়েছে যানবাহন সমাবেশ, জলবিদ্যুৎ, ঔষধি এবং সুগন্ধি গাছ এবং ফার্মাসিউটিক্যালস।”

তিনি আরও বলেন, “ভারত তার প্রতিবেশীদের সাথে বাণিজ্য প্রবাহে বাধা দূর করতে সংযোগ এবং বাণিজ্য অবকাঠামো প্রকল্পেও অর্থায়ন করছে। সংযোগ বাণিজ্য এবং জনগণের প্রবাহের উন্নতির পাশাপাশি অর্থনৈতিক একীকরণের প্রচারের জন্য একটি শক্তি গুণক হতে পারে।” খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক