যেকোনো সন্ত্রাসী কাজ অপরাধের ও অযৌক্তিক। একে সমূলে বিনষ্ট করতে হবে বলে বিবৃতি দিয়েছে নিরাপত্তা পরিষদ।

আফগানিস্তানে সাম্প্রতিক বেশ কয়েকটি সন্ত্রাসী হামলার কঠোর নিন্দা জানিয়েছে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ। শনিবার প্রকাশিত এক বিবৃতিতে এই নিন্দা জ্ঞাপন করে সংস্থাটি। হামলায় নিহতদের পরিবারের প্রতি গভীর শোক ও আহতদের দ্রুত আরোগ্য কামনা করে বিবৃতি দিয়েছে নিরাপত্তা পরিষদ।

এই ধরনের হামলা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয় উল্লেখ করে বিবৃতিতে নিরাপত্তা পরিষদের সদস্যরা বলেন, যেকোনো মূল্যে এই ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের চিহ্নিত করে বিচারের আওতায় আনা উচিত৷ এ ক্ষেত্রে যুদ্ধবিধ্বস্ত আফগানিস্তানের পাশে থাকারও অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন নিরাপত্তা পরিষদ সদস্যরা।

আফগানিস্তানের ক্ষমতাসীন তালেবান সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়ে নিরাপত্তা পরিষদ সদস্যরা আরও বলেন, সন্ত্রাসীদের এমন কর্মকাণ্ড কোনভাবেই সহ্য করা যাবে না৷ সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে সর্বতোভাবে যুদ্ধ চালিয়ে যেতে হবে৷ এসময়, সন্ত্রাসবাদে অর্থায়ন বন্ধ সহ যাবতীয় সকল সন্ত্রাসবাদের পৃষ্ঠপোষকদের জবাবদিহিতার আওতায় আনার প্রয়োজনীয়তার উপর জোর দেয়া হয় বিবৃতিতে।

উল্লেখ্য, গত শুক্রবার আফগানিস্তানের কুন্দুজ শহরের একটি মসজিদে ভয়াবহ বিস্ফোরণে কমপক্ষে ৩৩ জন নিহত হয়। এতে আহত হয় শিশুসহ অন্তত ৪৩ জন। একই দিনে কুন্দুজে আরেকটি হামলায় নিহত হয় চার জন এবং আহত হয় ১৮ জন। এখন পর্যন্ত এই দুই হামলার দায় স্বীকার করেনি কোনো গোষ্ঠী।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার আফগানিস্তান জুড়ে চারটি সিরিজ হামলা হয়। পরে ওই হামলার দায় স্বীকার করে আইএস। তবে শুক্রবারের হামলার দায় এখনো কোনো গোষ্ঠী স্বীকার করেনি। যদিও স্থানীয় বিভিন্ন গণমাধ্যমের দাবি, এই হামলার সঙ্গেও একই জঙ্গিগোষ্ঠী জড়িত।

প্রসঙ্গত, এসব হামলার ঘটনায় চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে তালেবান সরকার। শুক্রবারের হামলা ছিল গত বছর আগস্টে তালেবান ক্ষমতা নিয়ন্ত্রণে নেওয়ার পর সবচেয়ে বড় হামলার ঘটনা। এর আগে গত অক্টোবরে একটি শিয়া মসজিদে বোমা হামলায় ৫৫ জন নিহত এবং আহত হন আরও অনেকে। সেই হামলার দায় স্বীকার করেছিলো আইএস। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক