চিকিৎসার উদ্দেশ্যে ভারতে আসা বিদেশী পর্যটকের সংখ্যা ২০২০ সালে ১.৮৩ লাখ থেকে ২০২১ সালে ৩.০৪ লাখে উন্নীত হয়েছে।

ভারতে স্বাস্থ্যসেবার পরিবর্তন সম্পর্কে আমাদের দাদু-ঠাকুমাকে জিজ্ঞাসা করলেই দেখতে পাই, তাদের মুখে একটি অন্য রকম স্বতির ছাপ। কিছুদিন আগে পর্যন্তও ভারতীয়রা জটিল অস্ত্রোপচার বা পরীক্ষামূলক চিকিত্সার প্রয়োজন হলে পশ্চিমী দেশগুলিতে চলে যেতেন। কিন্তু এখন সারা বিশ্ব চিকিৎসার জন্য ভারতে আসে। এমন সময়ে যখন পশ্চিমে মানসম্পন্ন চিকিৎসা সেবা পাওয়া ক্রমশ কঠিন হয়ে উঠছে, ঠিক তখনই ভারতীয় স্বাস্থ্যসেবা শিল্প একটি উচ্চ মানের এবং অর্থনৈতিকভাবে কার্যকর বিকল্প হিসাবে বিশ্বের দরবারে তার ছাপ ফেলেছে।

ভারতের স্বাস্থ্যসেবা শিল্পে হাসপাতাল, মেডিক্যাল ডিভাইস, ক্লিনিকাল ট্রায়াল, আউটসোর্সিং, টেলিমেডিসিন, চিকিৎসা পর্যটন/মেডিক্যাল টুরিজম, স্বাস্থ্য বীমা এবং চিকিৎসা সরঞ্জাম রয়েছে। লাইফস্টাইল ডিজিসের ক্রমবর্ধমান ঘটনা, সাশ্রয়ী মূল্যের স্বাস্থ্যসেবা সরবরাহ ব্যবস্থার ক্রমবর্ধমান চাহিদা, প্রযুক্তিগত অগ্রগতি, টেলিমেডিসিনের আবির্ভাব, দ্রুত স্বাস্থ্য বীমা অনুপ্রবেশ এবং ই-হেল্থের মতো সরকারী উদ্যোগ (কর সুবিধা এবং প্রণোদনা সহ) ভারতে হেল্থ কেয়ার মার্কেটকে চালিত করছে।

২০২০ সালে ইন্ডিয়ান হেলথ টেক ইন্ডাস্ট্রির মূল্য দাঁড়িয়েছিলো প্রায় দু বিলিয়ন মার্কিন ডলার। সেটি মাত্র ৩ বছরে এসে ২০২৩ সালে দাঁড়িয়েছে প্রায় ৫ বিলিয়ন ডলারে! ভারতের ডায়গনিস্টিকস বাজারে অনুরূপ প্রবণতা দেখতে পাওয়া যাচ্ছে, সিএজিআর এর ২০ শতাংশের মূল্যমানই প্রায় ৩২ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে দাঁড়িয়েছে। এটি ২০১২ সালে ছিলো মাত্র ৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। অর্থাৎ গত দশ বছরে প্রায় সাড়ে ছয় গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে এই বাজার। একইভাবে, ভারতের টেলিমেডিসিন ২০২৫ নাগাদ সাড়ে ৫ বিলিয়ন এবং ন্যাশনাল ডিজিটাল হেলথ ব্লুপ্রিন্ট আগামী ১০ বছরে ২০০ বিলিয়ন ডলারের গন্ডি পাড়ি দিবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। সর্বোপরি, ভারতের স্বাস্থ্যসেবা শিল্প খুব শীঘ্রই বাৎসরিক ৫০০ বিলিয়ন ডলারের ল্যান্ডমার্ক অতিক্রম করবে বলেই বিশেষজ্ঞ মহলের পূর্বাভাস।

ভারতকে ইতিমধ্যেই বিশ্বের ফার্মেসি বলে পরিচিত করা হচ্ছে৷ শুধু তাই নয় এখন, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রকের জন্য সরকারের ২০২২-২৩ সালের কেন্দ্রীয় বাজেটে ৮৬,২০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে যা মেডিক্যাল ভ্যালু ট্রাভেল এর প্রত্যাশিত বৃদ্ধির জন্য ভারতের স্বাস্থ্যসেবা ইনফ্রাস্ট্রাকচারকে প্রস্তুত করার জন্য ব্যবহৃত হবে।

এই মুহুর্তে, ২০২০-২১ এর মেডিক্যাল ট্যুরিজম ইনডেক্সে ভারত দশম স্থান অধিকার করেছে। ইনফ্রাস্ট্রাকচার এবং হিউম্যান ক্যাপিটাল-এর সংমিশ্রণ এটিকে চালিত করে। শুধু তাই নয় ভারত ইংরেজিতে সাবলীলতার সাথে সাথে উচ্চ মানের চিকিৎসা প্রশিক্ষণ সহ ডাক্তার এবং প্যারামেডিকদের বৃহত্তম পুল অফার করে। বিশ্বের সব থেকে বেশি সংখ্যক মেডিক্যাল কলেজ ভারতেই রয়েছে।

ভারত সরকার চিকিৎসা এবং সুস্থতা পর্যটনের জন্য ভারতকে বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলার জন্য নিবেদিত, বিশ্বকে 'অতিথি দেবো ভাব'-এর সাথে 'সেবা'-এর ম্যান্ডেট দিয়ে হিল ইন ইন্ডিয়া -র জন্য আমন্ত্রণ জানাচ্ছে। এই উদ্যোগগুলির মধ্যে, ওয়ান স্টেপ এমভিটি পোর্টাল, যার লক্ষ্য হল ভারতে চিকিৎসা ভ্রমণকারীদের জন্য তাদের যাত্রার শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত একটি নিরবচ্ছিন্ন অভিজ্ঞতা তৈরি করা।

রোগী এবং পরিচর্যাকারীরা পদ্ধতি, শহর, হাসপাতাল, এমনকি বিশেষ ডাক্তারদের ভিত্তিতে প্রদানকারীদের অনুসন্ধান করতে সক্ষম হবেন। তারা শুধুমাত্র অ্যালোপ্যাথি এবং ইন্টিগ্রেটেড মেডিসিনের জন্যই নয়, বরং ঐতিহ্যগত ভারতীয় চিকিৎসা পদ্ধতির জন্যও অনলাইনে স্বচ্ছ মূল্যের প্যাকেজ অ্যাক্সেস করতে সক্ষম হবেন। এছাড়াও তারা এনএবিএইচ তালিকাভুক্ত এমভিটি ফ্যাসিলিটেটরদের মাধ্যমে তাদের ভ্রমণের ব্যবস্থা করতে পারবেন।

বিদেশীরা তিনটি বিভাগের অধীনে ভারতে মেডিক্যাল ভ্যালু ট্র্যাভেল করতে পারেন:

মেডিক্যাল ট্রিটমেন্ট: সার্জারি, অঙ্গ প্রতিস্থাপন, জয়েন্ট প্রতিস্থাপন, ক্যান্সার এবং দীর্ঘস্থায়ী রোগের চিকিত্সা ইত্যাদি সহ আরোগ্যমূলক উদ্দেশ্যে চিকিত্সা।

সুস্থতা এবং পুনরুজ্জীবন: অফারগুলি পুনরুজ্জীবন বা নান্দনিক কারণে যেমন কসমেটিক সার্জারি, স্ট্রেস রিলিফ, স্পা ইত্যাদির উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে।

ঐতিহ্যগত চিকিৎসা: ভারতের ঐতিহ্যবাহী চিকিৎসা পদ্ধতি, যা আয়ুষ মন্ত্রকের (আয়ুর্বেদ, যোগ ও প্রাকৃতিক চিকিৎসা, ইউনানি, সিদ্ধা এবং হোমিওপ্যাথি) অধীনে অন্তর্ভুক্ত।

প্রথমেই বলে রাখা ভাল এতে আর্থিক সঞ্চয় অপরিসীম। যুক্তরাষ্ট্রের তুলনায় প্রায় ৬৫ শতাংশ সঞ্চয় সহ ভারত কম খরচে বিশ্বমানের যত্ন এবং চিকিত্সা সরবরাহ করে। উচ্চ মানের এবং কম খরচেরসংমিশ্রণ ভারতকে পশ্চিমী দেশগুলির কাছে একটি আকর্ষণীয় গন্তব্য করে তোলে, এই একই চিকিৎসা তাদের নিজেদের দেশে অনেক বেশী ওয়েট টাইম এবং নিষেধাজ্ঞামূলক খরচের বিনিময়ে উপলব্ধ।

ভারতীয় হাসপাতালগুলি রোবটিক সার্জারি, রেডিয়েশন, সাইবার নাইফ স্টেরিওট্যাকটিক বিকল্প, আইএমআরটি/আইজিআরটি, ট্রান্সপ্লান্ট সাপোর্ট সিস্টেম ইত্যাদির মতো আধুনিক প্রযুক্তিতে প্রচুর বিনিয়োগ করেছে৷ এছাড়াও ভারতে কিছু বিখ্যাত সুপার-স্পেশালিটি হাসপাতাল এবং চিকিৎসা পরিষেবা রয়েছে৷যেটি আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স, ভার্চুয়াল রিয়েলিটি এবং হোলিস্টিক মেডিসিনের মতো সর্বশেষ প্রযুক্তি ব্যবহার করে রোগীদের সর্বশেষ এবং সবচেয়ে উন্নত চিকিৎসার বিকল্প প্রদান করে।

চিকিৎসার জন্য ভারত একটি আকর্ষণীয় গন্তব্য হওয়ার আরেকটি কারণ হল এ দেশে বিভিন্ন ধরনের বিকল্প উপলব্ধ রয়েছে। ভারত হল আয়ুর্বেদ, যোগ ও ন্যাচারোপ্যাথি, ইউনানি, সিদ্ধা এবং হোমিওপ্যাথি, যদিওএগুলিকে এখন আয়ুষ মন্ত্রণালয়-এর অধীনে আনা হয়েছে এবং রোগীদের সামঞ্জস্যপূর্ণ অভিজ্ঞতা প্রদানের জন্য নিয়ন্ত্রিত করা হয়েছে। যোগ আশ্রম, স্পা এবং সুস্থতা কেন্দ্রগুলি যা সামগ্রিক থেরাপি অফার করে সেগুলিও ওয়েলনেস মাইন্ডের টুরিস্টদের আকর্ষণ করে।

রোগীদের এবং তাদের পরিচর্যাকারীদের ভারতে আসার পেছনে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কারণটি হল মানের নিশ্চয়তা। ভারতের জাতীয় চিকিৎসা ও সুস্থতা পর্যটন বোর্ড একটি ডেডিকেটেড এবং কম্প্রিহেনসিভ ইন্সিটিউশন্যাল কাঠামো প্রদানের জন্য পর্যটন মন্ত্রীর সভাপতিত্বে গঠিত হয়েছে যা চিকিৎসা পর্যটনের প্রচার করে এবং এটিকে উন্নত করে – এবং তারই সাথে সাথে ভারতীয় চিকিৎসা ব্যবস্থাকেও। এই বোর্ডটি একটি আম্ব্রেলা অর্গানাইজেশন হিসাবে কাজ করে যা আয়ুষ মন্ত্রনালয় এবং এনএবিএইচ-এর প্রতিনিধিত্ব সহ চিকিৎসা পর্যটনকে পরিচালনা করে এবং এটির প্রচার করে। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক